তাপস দাস: নতুন আর্থিক বছর পড়ে গিয়েছে। শুরু হয়ে গিয়েছে কৃষকদের প্রাপ্তিযোগ। প্রধানমন্ত্রী কিসান সম্মান যোজনা (পিএমকিসান) প্রকল্পের অর্থ পৌঁছে যেতে শুরু করেছে কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে।

দু বছর আগে, ২০১৯ সালের ১ ফেব্রুয়ারির অন্তর্বর্তী বাজেটে পীযুষ গোয়েল এই প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিলেন। এই প্রকল্পে কৃষকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে বছরে ৬ হাজার টাকা করে দেবে কেন্দ্রীয় সরকার। অর্থ দেওয়া হয় তিন কিস্তিতে। এ বছর প্রথম কিস্তির টাকা ১ এপ্রিল থেকে দেওয়া শুরু হয়েছে, দেওয়া হবে ৩১ জুলাই পর্যন্ত। দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ১ অগাস্ট থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ও তৃতীয় কিস্তির অর্থ ১ ডিসেম্বর থেকে ৩১ মার্চের মধ্যে প্রদান করা হবে।

২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি উত্তরপ্রদেশের গোরখপুরে এক কর্মসূচিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এক কোটিরও বেশি কৃষকের অ্যাকাউন্টে ২০০০ টাকা প্রদানের মাধ্যমে এই কর্মসূচির সূচনা করেছিলেন।

কৃষিঋণ মকুব করার চেয়ে তাঁদের আর্থিক সাহায্য দেওয়া অনেক বেশি উপকারী বলে বেশ কিছু অর্থনীতিবিদের মত। সেই পরামর্শ সামনে রেখেই এই প্রকল্প।

এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে, এই প্রকল্পের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এক গুচ্ছ টুইট করেছিলেন। তাতে তিনি উল্লেখ করেছিলেন, যে কৃষকরা দিনরাত ঘাম ঝরিয়ে জাতির মুখে খাবার তুলে দিচ্ছেন তাঁদের কাজ উৎসাহের সঞ্চার করে। তিনি আরও বলেছিলেন, গত ৭ বছর ধরে কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের উন্নতিকল্পে ধারাবাহিক ভাবে কাজ করে আসছে। সেচ ব্যবস্থার উন্নয়ন থেকে মধ্যস্বত্বভোগী প্রথার বিলোপকরণের প্রচেষ্টা, সবরকম উদ্যোগই নেওয়া হচ্ছে বলে টুইটে উল্লেখ করেন মোদী। তিনি বলেন, কৃষকদের রোজগার দ্বিগুণ করতে সরকার বদ্ধপরিকর।

প্রধানমন্ত্রী কিসান সম্মান নিধি যোজনায় অন্তর্ভুক্তির জন্য ভারতের যে কোনও জায়গায় কৃষিজমি থাকতে হবে।

- সমস্ত কৃষকরাই এই প্রকল্পের সুবিধা পেতে পারবেন
- জমির দলিল, আধার কার্ড ও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থাকা বাধ্যতামূলক।
- সাংবিধানিক পদে রয়েছেন এমন কোনও ব্যক্তির পরিবারের সদস্যরা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন না।
- কেন্দ্রীয় বা রাজ্য সরকারি চাকুরিয়া এই সুবিধা পাবেন না
- চিকিৎসক, আইনজীবী, ইঞ্জিনিয়ররা এই প্রকল্পের আওতাভুক্ত নন।
- মাসিক ১০ হাজার টাকা যাঁদের পেনশন, এবং শেষ আর্থিক বছরে যাঁরা আয়কর দিয়েছেন, তাঁরাও এই সুবিধা পাবেন না।