'রথে লোক না হওয়ায় চলে গিয়েছেন নাড্ডা', বিজেপির রথযাত্রা নিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমোর তোপের পরে এবার গেরুয়া শিবিরকে নিশানা করলেন জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল।  এদিন সভা থেকে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্য়েও প্রশ্ন তোলেন অনুব্রত।

আরও পড়ুন, 'আমারও ইচ্ছে করে গয়না পরতে', 'সুখ ভোগের' দায়ে শুভেন্দুকে নিশানা মমতার 

 

 


বুধবার মুখ্যমন্ত্রীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে ওঠেন  অনুব্রত মন্ডল। এদিন তিনি সুর টেনে বলেন, 'বাচ্চা ছেলে-মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার কষ্ট দেখে তাঁদের জন্য জুতোর ব্যবস্থা করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। মিড ডে মিল করে দিয়েছেন। আর নরেন্দ্র মোদী তুমি কী করলে,১০০ দিনের কাজ বন্ধ করে দিলে, বলে  কড়া সুরে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্য প্রশ্ন রাখেন অনুব্রত।  বাংলার রুপশ্রী, কন্যাশ্রী সকল প্রকল্পের নাম করে বাংলার মানুষের জন্য কী কী করেছেন 'দিদি', ভোটের আগে পরপর মনে করান। এবং এরপরেই 'দিদি'-র রায়গঞ্জের বলা কথাকে অনুসরণ করে সোজা চলে আসেন বিজেপির রথ যাত্রায়। বিজেপির ওই রথ যে পৌরসভার আবর্জনা ফেলার গাড়িকে পরিষ্কার করে তৈরি করা হয়েছে, বিজেপির ঘরের খবর জনতা-জনার্দনের সামনে তুলে ধরেন 'খেলা হবে'-র স্রষ্ঠা। এরপর রথ বলতে কী বোঝায় একেবারেই রচনা বলা মতোই সংজ্ঞা থেকে নিখুঁত বর্ণনায় নেমে আসেন অনুব্রত। তিনি বলেন, আসল রথের চাকা তো কাঠের হয়, টেনে নিয়ে যায় মানুষ। এখানে তো স্টিয়ারিং,রবারের চাকা, আস্ত গাড়ি- কী করে তাহলে এটা বিজেপির রথ হয়, বলে বোঝানো শুরু করেন অনুব্রত। এবং শেষটায় নাড্ডাকে খোঁচা দিয়ে বলেন, 'রথে লোক না হওয়ায় চলে গিয়েছেন নাড্ডা।'

আরও পড়ুন, 'বাংলায় এবার পদ্ম চাষ হবেই', খড়গপুরে 'পিসি-ভাইপো'কে নিশানায় রাখলেন নাড্ডা 

 

 

উল্লেখ্য, এদিন রায়গঞ্জের সভা থেকে বিজেপির রথযাত্রা নিয়ে নিশানা করেন মমতা। দিন জনসভা থেকে বলেন, 'দেবতারা চলে গিয়ে বিজেপি নেতারা এসেছে। জগন্নাথ দেবের রথযাত্রাকে কালিমালিপ্ত করেছে বিজেপি। 'রাবণ রথে চেপে এসে সীতাকে হরণ করেছিল',পৌরাণিক প্রসঙ্গ তুলেও বিজেপিকে নিশানা করেন মমতা। এরপরে তিনি বলেন,  ' আমি দেখেছি দেবতারা রথ চড়ে। এখন দৈত্যরা হোটেলের মতো রথ তৈরি করে যাত্রা করছে।' আসলে বুধবার খড়গপুর থেকে সাতসকালে চায়ে পে চর্চায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ শব্দবাণ নিক্ষেপ করেছেন অনুব্রতের উদ্দেশ্য। এদিন দিলীপ ঘোষ চায়ে পে চর্চায় অনুব্রতের স্টাইল নকল করে তাঁকেই তোপ দাগেন। বলেন, 'এবার শুধু আমরা খেলব, গ্য়ালারিতে থাকবে তৃণমূল।' এহেন বাক্যবাণের পর আবার নাড্ডাও দিদিকে আক্রমণ করেন খড়গপুরে দাঁড়িয়েই। তখনও শুরু হয়নি রায়গঞ্জে মমতার সভা। তবে ভোট যতো এগিয়ে আসছে, শাসক ও বিরোধী দলের সভার সংখ্যা বাড়ছে। সকালের তোপের উত্তর আর কেউ বাসি করে  ফেরৎ দিতে রাজি নয়, তাই দিনের দিনই পাল্টা জবাব সেরেই ফেললেন অনুব্রতও।