রায়গঞ্জ - প্রতিবেশীদের সঙ্গে গল্প করার ' অপরাধে' গৃহবধুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করার অভিযোগ উঠলো এক তৃনমূল কংগ্রেস কর্মীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে রায়গঞ্জ থানার ভাতুন গ্রাম পঞ্চায়েতের বেলদারপাড়া এলাকায়। আহত ওই গৃহবধুর নাম পুজা সিং। বাড়ি বেলদারপাড়াতে। সাধন অধিকারী নামে ওই তৃনমুল কংগ্রেসের কর্মী ঘটনার পর থেকে পলাতক। এই ঘটনায় পুজার স্বামী ছোটু সিং রায়গঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে ওই তৃনমুল কর্মী বিরুদ্ধে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। 

আরও পড়ুন- পিপিই কিট পরে কমিশনের সামনে শুয়ে প্রতিবাদ, বন্ধ করা হোক নির্বাচন, কাতর আবেদন 

পরিবারসূত্রে জানা গিয়েছে, রায়গঞ্জ থানার ভাতুন গ্রাম পঞ্চায়েতের বেলদারপাড়া এলাকার বাসিন্দা ছোটু সিং তার স্ত্রী পুজা সিং এর সঙ্গে গ্রামে কিছু বাসিন্দাদের ঝামেলা চলছিল দীর্ঘদিন ধরে। জানা গিয়েছে, তাঁদের সঙ্গে গ্রামের  মানুষের কথা না বলার নিদান দিয়েছিল স্থানীয় এক তৃণমূল নেতা। কয়েকদিন ধরে গ্রামের কিছু বাসিন্দাদের সঙ্গে ছোটু ও তার স্ত্রীর সঙ্গে মিল হয়ে গিয়ে আবার কথা বলতে শুরু করে এলাকার মানুষেরা। মঙ্গলবার বিকেলে পাশের বাড়ির এক গৃহবধুর সঙ্গে কথা বলছিল পুজা সিং। সেখানে আচমকাই সাধন অধিকারী এসে পুজা সিংকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করলে থাকলে পুজা তার কথার প্রতিবাদ করে। এমন সময় পুজার উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করলে পুজার হাতে চোট লাগে। 

আরও পড়ুন- মুর্শিদাবাদে বোমাবাজিতে মৃত্যু মহিলাসহ দু'জনের, তৃণমূলকেই দুষলেন কংগ্রেস বিধায়িকা 

সাধন তখন পাশে থেকে একটি লাঠি নিয়ে এসে পুজার মাথায় আঘাত করলে পুজা রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে পড়ে যায়। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে। তড়িঘড়ি পুজার স্বামী ছোটুকে খবর দিলে ছোটু বাড়িতে ছুটে আসে। রক্তাক্ত অবস্থায় পুজাকে প্রথমে রায়গঞ্জ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাকে রায়গঞ্জ জেলা গর্ভামেন্ট মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ঘটনার পর থেকে পলাতক তৃণমূল কর্মী সাধন অধিকারী৷  

এই ঘটনায় পুজার স্বামী সাধনের বিরুদ্ধে রায়গঞ্জ থানার অভিযোগ দায়ের করা হয়। পুলিশ সাধনের খোঁজে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালানো হচ্ছে। আহত পুজার স্বামী ছোটু সিং জানিয়েছেন, 'যে আমার স্ত্রীকে মেরেছে তার শাস্তি চাই, কারণ আজ আমার স্ত্রীর সঙ্গে এমন কাজ করেছে আগামী দিনে এমন কাজ আর যেন না করতে পারে তার জন্য সাধনের উপযুক্ত শান্তির দাবি জানাচ্ছি।'