বুদ্ধদেব পাত্র, পুরুলিয়া-বিধানসভা ভোটের প্রাক্কালে ক্রমশই জল্পনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়াচ্ছেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ কিংবা একমঞ্চে দাঁড়ালেই দলীয় কোপের মধ্যে পড়ছেন সংশ্লিষ্ট নেতারা। মুর্শিদাবাদে শুভেন্দুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার কারনে নিরাপত্তা রক্ষী সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল জেলা সভাধিপতির। অন্যদিকে, একইরকমভাবে কোপে পড়েছিলেন মালদহ তৃণমূল জেলা সভাধিপতি। এবার দলীয় কোপে পড়লে পুরুলিয়ার জেলার প্রাক্তন সভাধিপতি।

আরও পড়ুন-ধর্ষণ করে বধূ খুনের প্রতিবাদে বিজেপির বনধ ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড, পুলিশের ধস্তাধস্তি

এবার যিনি দলীয় কোপে পড়েছেন তিনি পুরুলিয়া তৃণমূল জেলা প্রাক্তন সভাধিপতি সৃষ্টিধর মাহাতো। শুভেন্দুর সঙ্গে একমঞ্চে থাকার খেসারত দিতে হল তাঁকে। সোমবার তাঁর দুই নিরাপত্তারক্ষী তুলে নিল জেলা পুলিশ। জানাগেছে, রবিবার পুরুলিয়ার তৃণমূল জেলা    সম্পাদক গৌতম রায়ের জগদ্ধাত্রী পুজোর উদ্বোধনে গিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সেখানে শুভেন্দুর পাশেই ছিলেন জেলা প্রাক্তন সভাধিপতি সৃষ্টিধর মাহাতো। এরপরই রাতারাতি তাঁর নিরাপত্তারক্ষী তুলে নেয় পুরুলিয়া জেলা পুলিশ।

আরও পড়ুন-'মানুষের কাছে ভ্যাকসিন পৌঁছাতে আমরা প্রস্তুত', মোদির সঙ্গে বৈঠকে জানালেন মমতা

প্রসঙ্গত, ২০১০ সালে মাওবাদীরা একটি হিটলিস্ট প্রকাশ করেছিল। সেখানে নাম ছিল তৃণমূল নেতা সৃষ্টিধর মাহাতোর। ২০১১ সালে তৃণমূল সরকার প্রথম ক্ষমতায় আসার তাঁকে নিরাপত্তারক্ষী দেয় রাজ্য সরকার। ২০১৩ সালে পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূলের জয়লাভের পর তাঁকে জেলা পরিষদের সভাধিপতি করে দল। তখন তাঁর ছয় জন নিরাপত্তারক্ষী ছিল। ২০১৮ সালে পঞ্চায়েত নির্বাচনে পুরুলিয়ায় তৃণমূলের খারাপ ফল হওয়ার পর তাঁকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় এবং তাঁর নিরাপত্তারক্ষীর সংখ্যা কমিয়ে ২ জন করা হয়। এই অবস্থায় রবিবার শুভেন্দুর সঙ্গে একমঞ্চে থাকায় এবার সব নিরাপত্তারক্ষী সরিয়ে দেওয়া হল। এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী, রাজ্যপাল ও জেলা পুলিশ সুপারকে চিঠি দিয়েছেন সৃষ্টিধর মাহাতো।