প্রেমিকার বয়স ১৭। প্রেমিকের বয়স ২১ বছর। কিন্তু নাবালিকা প্রেমিকা তাঁর প্রেমিক বিয়ে করতে নাছোড় বান্দা। বিয়ে করতে চেয়ে ছেলের বাড়ির বারান্দাতেই ধর্নায় বসে পড়ল নাবালিকা। ঘটনার জেরে সাত সকালে চাঞ্চল্য চড়ার বসিরহাটের হিঙ্গলগঞ্জের নবীগঞ্জ গ্রামে। অবশেষে মুচলেকা দিয়ে সমস্যার সমাধান করে হিঙ্গলগঞ্জ থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন-মঙ্গলেও এবার জমি মালিক বাঙালি, শ্রীরামপুরের শৌনকের হাতে পৌঁছল জমির দলিল

পুলিশ সূত্রে খবর, দক্ষিণ ২৪ পরগনার ছোট মোল্লাখালি থানার কুমিরমারি গ্রামের বাসিন্দা ওই নাবালিকা। আত্মীয়ের বাড়িতে এসে পরিচয় হয় হিঙ্গলগঞ্জের নবীগঞ্জ গ্রামের বাসিন্দা মহাদেব সরদারের সঙ্গে। বছর একুশের মহাদেবের  সঙ্গে  ফোনো কথা বলতে বলতে তাঁদের প্রেমের সম্পর্ক ভালই চলছিল। দুজন-দুজনকে বিয়ের প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিল বলে দাবি প্রেমিকার। কিন্তু, কিছু দিন আগে তাঁদের সম্পর্ক ছিন্ন করে প্রেমিক মহাদেব।

পরপর ২বার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল নদিয়ার বিস্তীর্ণ এলাকা, আতঙ্কে বাইরে বেরোল এলাকাবাসী

এরপরই, প্রেমিকা অগত্য়া কোনও উপায় না দেখে নাবালিকার বাড়ির বারান্দায় গিয়ে ধর্নায় বসে সে। ঘটনার জেরে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। শেষমেষ প্রেমিক বিয়ে করতে রাজি হয়। কিন্তু, দেখা যায় প্রেমিকার বয়স ১৭ বছর। সে নাবালিকা হওয়ায় বিয়ে করতে রাজি হয়নি প্রেমিক মহাদেব সরদারের পরিবার।

নিম্নচাপের জের, ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে

এরপরই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় হিঙ্গলগঞ্জ থানার পুলিশ। নাবালিকাকে বিয়ে করা আইনত অপরাধ। তাই তার বয়স ১৮ বছর হলে প্রেমিককে বিয়ে করবে সে। এমনই মুচলেকা দিয়ে প্রেমিকার বাড়ি থেকে ধর্না তোলে ওই নাবালিকা। এই ঘটনার জেরে হতবাক হয়ে পড়েন এলাকার বাসিন্দারা।