অর্জুন সিংয়ের মাথা ফাটার জের। সোমবার ব্যারাকপুর মহকুমা এলাকায় বারো ঘণ্টার বনধের ডাক দিল বিজেপি। শুধু তাই নয়, রাজ্য সরকার এবং শাসক দলের উপরে চাপ বাড়াতে সোমবারই ব্যারাকপুরে আসছে বিজেপি-র কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। 

অন্যদিকে ভাটপাড়া থানার কাছে ব্যারাকপুর মেঘনা মোড়ে অর্জুন সিংয়ের বাড়ি রাত পর্যন্ত ঘেরাও করে রেখেছে কয়েকশো পুলিশকর্মী। অর্জুন পুত্র বিধায়ক পবন সিংও এলাকাছাড়া বলে সূত্রের খবর। অর্জুনের পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও বাড়িতে নেই বলে জানা গিয়েছে। ভিতর থেকে বন্ধ রয়েছে বাড়ির সদর দরজা। 

আরও পড়ুন- রণক্ষেত্র কাঁকিনাড়া, মাথা ফাটল বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের

পুলিশ বিজেপি সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে মাথা ফাটল ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের। শ্যামনগরে বিজেপি পার্টি অফিস দখলকে কেন্দ্র করে এ দিন সকাল থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। ক্রমে এই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে কাঁকিনাড়া এলাকায়। পথ অবরোধ করে বিজেপি। পুলিশ লাঠিচার্জ করে সেই অবরোধ তুলতে গেলে পাল্টা ইট ছোড়ে বিজেপি সমর্থকরা। তারই মাঝে পড়ে মাথা ফাটে অর্জুন সিংয়ের।

আহত সাংসদকে প্রথমে ভাটপাড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাঁর মাথায় অন্তত দশটি সেলাইন পড়ে। আঘাত গুরুতর হওয়ায় কোনও ঝুঁকি না নিয়ে অর্জুন সিংহকে ই এম বাইপাসের ধারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাঁর মাথার সিটি স্ক্যান- সহ অন্যান্য পরীক্ষা করা হয়। দলীয় সাংসদকে দেখতে হাসপাতালে যান মুকুল রায়- সহ রাজ্য বিজেপি-র নেতারা।

বিজেপি সাংসদের অবশ্য অভিযোগ,  মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মার লাঠির আঘাতে তাঁর মাথা ফেটেছে। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তাঁর পাল্টা অভিযোগ, নিজেদের মধ্যে গন্ডগোলেই মাথা ফেটেছে অর্জুনের। তৃণমূল নিজেদের পার্টি অফিস দখল করার সময় অর্জুন গিয়ে অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করেন বলেও অভিযোগ করেছেন খাদ্যমন্ত্রী। 

সবমিলিয়ে শান্ত হয়ে আসা ভাটপাড়া, কাঁকিনাড়া এলাকা ফের উত্তপ্ত হওয়ার আশঙ্কা। বিজেপি যে সহজে এই ইস্যু হাতছাড়া করবে না, তা ইতিমধ্যেই স্পষ্ট।