কয়েকদিন আগেই পুলিশকে খুনের হুমকি দেওয়ায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পুলিশ। এবার রাজ্য সভাপতির কায়দাতেই পুলিশের 'লাশ ফেলার' হুমকি দিলেন উত্তর দিনাজপুরের বিজেপি জেলা  সভাপতি নির্মল দাম। বাংলা ছবির জনপ্রিয় সংলাপ ধার করে পুলিশকে নির্মলবাবুর হুমকি, 'মারব এখানে, লাশ পড়বে শ্মশানে।'

ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিংয়ের উপরে হামলার প্রতিবাদে সোমবার গোটা রাজ্যেই বিক্ষোভ প্রদর্শন করে বিজেপি। উত্তর দিনাজপুরেও জেলা পুলিশ সুপারের অফিস ঘেরাও করে গেরুয়া বাহিনী। সেই বিক্ষোভের মাঝেই এমন হুমকি দিতে শোনা যায় বিজেপি জেলা সভাপতিকে। তাঁর অভিযোগ, গোটা রাজ্যেই পুলিশের মদতে বিজেপি নেতা, কর্মীদের উপরে হামলা চালাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। নির্মলবাবুর অভিযোগ, 'গত চার পাঁচ দিনের মধ্যে আমাদের দলের রাজ্য় সভাপতি দিলীপ ঘোষের উপরে হামলা হয়েছে। ব্যারাকপুরের সাংসদের মাথা ফেটেছে। বনগাঁর বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাসকে মারধর করা হয়েছে। প্রতিদিন গোটা রাজ্যে বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে ঢুকে তৃণমূলকর্মীরা পেটাচ্ছে, দাঁ দিয়ে কোপাচ্ছে। আর এর পুরোটাই হচ্ছে পুলিশের মদতে।' 

আরও পড়ুন- অশান্তির মূলে অর্জুন পুত্র পবন, ব্যারাকপুরের সিপি-র পাশেই নবান্ন

আরও পড়ুন- দফায় দফায় সংঘর্ষ, বনধ ঘিরে অশান্তির আগুন গোটা ব্যারাকপুরে

এর পরেই পুলিশকে হুমকি দিতে শুরু করেন বিজেপি জেলা সভাপতি। পুলিশকে সতর্ক করে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে ফের এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে তাঁদের আন্দোলন আর গান্ধীগিরির পথে থাকবে না। ভবিষ্যতে একজন বিজেপি কর্মীর উপরে হামলা হলে বা বিজেপি-র পার্টি অফিস দখল হলে যে তাঁরা হিংসাত্মক আন্দোলনের পথেই হাঁটবেন, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন উত্তর দিনাজপুরের বিজেপি জেলা সভাপতি। 

পুলিশকে সতর্ক করতে গিয়ে বাংলা ছবির জনপ্রিয় সংলাপও শোনা যায় তাঁর মুখে। রীতিমতো হুমকির সুরে তিনি বলেন, 'এর পরেও পুলিশ যদি তৃণমূল কংগ্রেসকে সাহায্য করে, তাহলে তারা বুঝতে পারবে বিজেপি কী জিনিস। তখন পুলিশের গায়েও পদ্ম কাঁটা লাগবে। আমাদের জেলায় একটিও বিজেপি পার্টি অফিস দখল হলে বা কোনও বিজেপি কর্মীর গায়ে হাত পড়লে তার দায় পুলিশকে নিতে হবে। বাংলা ছবির সংলাপ ছিল 'মারব এখানে, লাশ পড়বে শ্মশানে।' সেদিন উত্তর দিনাজপুরের পুলিশও সেটা বুঝতে পারবে।' বিজেপি জেলা সভাপতির এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয় কি না, সেটাই এখন দেখার।