কেউ চুরি করেন অভাবে, তো কেউ আবার স্বভাবে। করোনা আতঙ্কে চোরদের স্বভাবও পাল্টে গেল! না হলে অ্যাদ্দিন কি আর সাইকেলটা রাস্তায় পড়ে থাকত! ঘটনায় হতবাক রায়গঞ্জ শহরের বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন: অদম্য সাহসেই বাজিমাত, তামিলনাড়ু থেকে সাইকেল চালিয়ে ফিরলেন ডায়মন্ড হারবারের যুবক

পেটের দায়ে ভিনরাজ্যে কাজ করতে যেতে হয় তাঁদের। লকডাউনের জেরে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন এ রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকেরা। কাজকর্ম বন্ধ, রোজগার নেই। বাধ্য হয়ে বাড়ি ফিরে চাইছেন সকলেই। বাস-ট্রেন বন্ধ, তাতেও কুছ পরোয়া নেহি। সাইকেল চালিয়ে বাড়ির পথে রওনা দিয়েছেন অনেকেই। 

জানা গিয়েছে, দিন চারেক আগে যখন সাইকেল চালিয়ে ভিনরাজ্য থেকে ফিরছিলেন, তখন রায়গঞ্জ শহরের শিলিগুড়ি মোড়ে এক পরিযায়ী শ্রমিককে আটকান কর্তব্যরত পুলিশকর্মীরা। উপসর্গ সন্দেহজনক হওয়ার তাঁকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় কোরায়েন্টাইন সেন্টারে। ওই পরিযায়ী শ্রমিক যেভাবে রেখে গিয়েছিলেন, সেভাবেই তাঁর সাইকেলটি কিন্তু এখনও রাস্তাতেই পড়ে আছে। অন্তত তেমনই দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। তাঁরা জানিয়েছেন, পুলিশের তাড়ায় সাইকেলটিতে চাবি লাগিয়ে যাওয়ারও সময় পাননি মালিক।  

আরও পড়ুন: সুস্থ সন্তানের জন্ম দিলেন করোনা আক্রান্ত মহিলা, স্বস্তিতে পরিবার

আরও পড়ুন: বাইক থেকে ছড়িয়ে পড়ছে হাজার হাজার টাকা, কুড়িয়ে নিয়ে করোনা আতঙ্কে রায়গঞ্জ

রায়গঞ্জে চোরদের উপদ্রব নেই, এমনটা কিন্তু নয়। দিন আগে শহরে বীরনগর এলাকায় দিনেদুপুরে একটি বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটেছে। শুধু তাই নয়, ঘটনার সময়ে বাড়িতে অনেকেই ছিলেন। কিন্তু কেউই কিছু টের পাননি। তাহলে খোলা রাস্তায় অরক্ষিত সাইকেলটি কেউ নিচ্ছে না কেন? করোনা আতঙ্কের সুফল নাকি? জোর আলোচনা চলছে রায়গঞ্জের সর্বত্রই।