লকডাউনের জেরে আটকে পড়েছিলেন ভিনরাজ্যে। কিন্তু মনের জোর ও সাহস হারাননি! তামিলনাড়ু থেকে সাইকেল চালিয়ে বাড়ি ফিরলেন ডায়মন্ড হারবারের যুবক। সময় লাগল ১৩ দিন।

আরও পড়ুন: একটা ঘটনা নিয়ে এত 'শোরগোল' কেন, টিকিয়াপাড়া নিয়ে বিজেপিকে পাল্টা মমতার,

ওই যুবকের নাম আতিবুল শাহ। বাড়ি, ডায়মন্ড হারবার ২ নম্বর ব্লকের সিমলা গ্রামে। কখনও অন্ধ্রপ্রদেশ, তো কখনও আবার কেরল, কাজের সুবাদে চেন্নাই-এও যেতে হয় বছর তেইশের ওই যুবকের। ঠিকাদারের অধীনে সরকারি ও বেসরকারি ভবনে এসি মেশন লাগানোর কাজ করেন আতিবুল। প্রতিবারই কাজ সেরে কয়েক মাসের মধ্যে ফিরে আসেন তিনি। 

জানা গিয়েছে, লকডাউনের শুরু হওয়া দিন পনেরো আগে কাজের জন্য তামিলনাড়ু যান আতিবুল। কিন্তু তখনও সেখানে কাজ শুরু হয়নি। এরইমধ্যে আবার লকডাউনও জারি হয়ে যায়। ফলে সমস্যায় পড়েন তিনি। হাতে অল্প যেটুকু টাকা ছিল, তাও ফুরিয়ে যায় কয়েকদিনেই। নিরুপায় হয়ে বাড়িতে ফোন করে টাকা চান ভিনরাজ্যে আটকে পড়া ওই যুবক।  ধারদেনা করে কোনওমতে ছেলেকে হাজার তিনেক টাকা পাঠান পরিবারে লোকেরা। সেই টাকাতেই পুরানো সাইকেল কিনে তামিলনাড়ু থেকে বাড়ির পথে রওনা দেন আতিবুল! বাড়ি পৌঁছেছেন বুধবার। 

আরও পড়ুন: 'পুলিশি হেনস্তা'র শিকার নার্স, স্কুটি থেকে নামিয়ে সপাটে 'চড়' মহিলা কনস্টেবলের

আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় আগাম সতর্কতা, আরামবাগ শহরের প্রবেশপথে বসল লকগেট

সাইকেলে চেপে তো বাড়িতে ফিরলেন, তবে টাকা না থাকায় ফেরার পথে কম ঝক্কি পোহাতে হয়নি আতিবুলকে। রাত কাটিয়েছে মন্দিরে, এমনকী সেতুর নিচেও। রাস্তার পাশে দোকান থেকে খাবার চেয়ে পেট ভরাতে হয়েছে তাঁকে।  বাড়ি ফেরার পর ওই যুবকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা হয় ডায়মন্ড হারবার হাসপাতাসে। তাঁকে আপাতত  ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।