গোলাপও নয়। লিলিও নয়। প্রেমের প্রকাশ পেল ব্লাড ব্যাংকের বেডে। সংস্কৃত-এ এমএ প্রেমিকাকে সারপ্রাইজ দিতে নিজের প্রতিষ্ঠানকেই বেছে নিলেন বারাসত জেলা হাসপাতালের অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপার আকাশ মজুমদার। 

কন্যাশ্রীর টাকা পেতেও লাগছে কাটমানি, অভিযোগ করে বিডিওর কাছে ছাত্রী

আগামী কয়েকমাস পরই বসিরহাটের বাসিন্দা তাঁর প্রেমিকাকে বিয়ে করতে চলেছেন বলে জানান আকাশ। ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রেমিকার সাথে ফোনালাপে প্রথম চমকটা দেন তিনি। বলে দেন,এবার গোলাপ,লিলি অথবা উপহার নয়। পেশার কারণেই দেখেছি,এক বোতল রক্ত কীভাবে মানুষকে বাঁচিয়ে দেয়। তুমি,আমি চকোলেট জীবনে অনেক খেতে পারব। প্রেমিকাকে বলেন,আগামীকাল হাসপাতালে রক্তদান করে তোমার আমার প্রেমকে স্মরণীয় করব।

পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার বর্ষপূর্তি, শহিদদের স্মরণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

সেই মতো আজ সকালে নিজের কর্মস্থলের বেডে শুয়ে আকাশ জানায়,প্রতি মাসে এই হাসপাতালে ১৭৩ জন থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত রোগীদের রক্ত দিতে হয়।তাই,তাদের মতো মুমূর্ষদের কথা ভেবে ভালোবাসার দিনকেই বেছে নিয়েছি।বারাসত জেলা হাসপাতালের সুপার সুব্রত মন্ডল জানান,তাঁরাও প্রেমের দিন পালন করছেন হাসপাতালে।থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত রোগীদের হাতে গোলাপ ও চকলেট তুলে দিয়ে।তবে সহকর্মীর প্রেমের দিবসে রক্তদানকে প্রকৃত প্রেমের প্রকাশ বলেই মনে করেন তিনি।