যেকোনও মুহূর্তে হতে পারে প্রাণঘাতী হামলা। রাতারাতি তাই কলকাতার বাড়ি বদলালেন বিজেপির রাজ্য় সভাপতি দিলীপ ঘোষ। 
খবর ছিল আগে থেকেই। রাজ্য়ে বিজেপি ক্ষমতাশালী দল হিসাবে উঠে আসায় আশঙ্কাটা আরও জোরদার হচ্ছিল। নির্দিষ্ট সময় মেপে বাড়ানো হয়েছিল বিজেপির রাজ্য় সভাপতির নিরাপত্তা বলয়। এবার  ওয়াই প্লাস ক্য়াটেগরি থেকে জেড  নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে দিলীপ ঘোষকে। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে খবর,জামাত উল মুজাহিদিন বাংলাদেশ বা (জেএমবি)জঙ্গি সংগঠনের মাধ্য়মে বিজেপির রাজ্য় সভাপতির ওপর হামলা হতে পারে। সেরকমই ছক কষছে এই জঙ্গিগোষ্ঠী।

আরও পড়ুন : দিদিকে বলোর পর এবার 'দাদাকে বলো'
কদিন আগেই কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার এক রিপোর্ট সতর্ক করে দিয়েছে সরকারকে। সূত্রের খবর,রিপোর্টে গোয়েন্দারা জানিয়েছে। ভারতের ওপর হামলা করতে পাকিস্তানের জঙ্গি গোষ্ঠী লস্কর-ই-তইবার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে বাংলাদেশের জেএমবি জঙ্গিরা। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের ১০ কিলোমিটারের মধ্য়ে নিজেদের জাল বিস্তার করতে চাইছে এই জঙ্গিরা। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া পশ্মিমবঙ্গ, অসম ও ত্রিপুরায় হামলা চালাতে চাইছে জেএমবির জঙ্গিরা। নিজেদের মুখপত্র আল এহসার-এ এই পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে জামাত উল মুজাহিদিনের প্রধান সালাউদ্দিন সালাহিন।

আরও পড়ুন : ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার বিজেপি নেতা, এফআইআরে নাম মুকুলের
সীমান্তবর্তী তিন রাজ্য় ছাড়াও দক্ষিণ ভারতকেও নিশানা করেছে জেএমবির জঙ্গিরা। সম্প্রতি বৌদ্ধগয়া বিস্ফোরণের ১২ অভিযুক্ত জিজ্ঞাসাবাদের পরই এই তথ্য় উঠে এসেছে।  জাইদুল ইসলাম নামের এক জঙ্গিকে জিজ্ঞাসা করেই এই তথ্য় পেয়েছে গোয়েন্দারা। এছাড়াও পশ্চিমবঙ্গে স্থায়ী ঘাঁটি গাড়তে চাইছে জেএমবি। সূত্রের খবর, রাজ্য়ে ঘাঁটি গাড়তে বর্ধমান ও মুর্শিদাবাদের মাদ্রাসার ছেলেদের মগজধোলাই করতে চাইছে এই সংগঠন। মূলত, ইসলামিক স্টেটের ভাবধারায় বিশ্বাসী এই সংগঠন রোহিঙ্গাদের সমব্য়থী। জম্মু-কাশ্মীর থেকে আর্টিকেল ৩৭০ বিলোপের পর গেরুয়া ব্রিগেডের ওপর হামলার ছক কষছে জেএমবি। সেকারণে রাজ্য়ে দিলীপ ঘোষ তাদের অন্য়তম টার্গেট।
ইতিমধ্য়েই জঙ্গি নাশকতা থেকে দিলীপ ঘোষকে রক্ষা করতে ওয়াই প্লাস ক্য়াটেগরি থেকে জেড  নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে বিজেপির রাজ্য় সভাপতিকে। বর্তমানে সল্টলেক সেক্টর ফাইভের সিএল ২০৯ ঠিকানায় আছেন দিলীপবাবু। সেখানে সব সময় তাঁর গেটের আগে কার্বাইন হাতে থাকবে নিরাপত্তারক্ষী।