ব্যবধান দু'বছরের। শীতের মরশুমে ফের বাঘ ফিরল লালগড়ের জঙ্গলে।  জঙ্গলে যাওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বনদপ্তর। স্থানীয় বাসিন্দাদের সতর্ক করতে সোমবার সকাল থেকে শুরু হয়ে গিয়েছে মাইকিং।  বাঘ ধরতে জঙ্গলে খাঁচাও পাতা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

লালগড়ে জঙ্গলে আগেও রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের সন্ধান মিলেছিল। বাঘের পায়ের ছাপ ভালোমতোই চেনেন স্থানীয় বাসিন্দারা। রবিবার সকালে যখন লালগড়ের লক্ষ্মণপুর গ্রামের রাস্তায় ও চাষের জমিতে হিংস্র জন্তুর পায়ের ছাপ নজরে পড়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের, তখন রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। গ্রামবাসীদের দাবি, ওই পায়ের  ছাপ বাঘেরই। খবর দেওয়া হয় বনদপ্তরে। লালগড়ের লক্ষ্মণপুর গ্রামে রবিবার দিনভর চলে তদন্ত। প্রাথমিক তদন্তে ওই পায়ের ছাপগুলি যে বাঘেরই, সে বিষয়ে বনদপ্তরের আধিকারিকরা নিশ্চিত বলে জানা গিয়েছে। বনদপ্তর সূত্রে খবর, বাঁকুড়াতেও একইরকম পায়ের ছাপ দেখা গিয়েছে। 

আরও পড়ুন: কালভার্টের নীচে মিলল মহিলার অগ্নিদগ্ধ দেহ, হায়দরাবাদ কাণ্ডের ছায়া এ রাজ্যেও

আরও পড়ুন: মধ্যরাতে আমবাগানে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, আতঙ্ক ছড়াল মালদহে

২০১৮ সালে মার্চে লালগড়ের মেলখেড়িয়া জঙ্গলে বনদপ্তরের ট্যাপ ক্যামেরায় রয়্য়াল বেঙ্গল টাইগারের ছবি ধরা পড়েছিল।  সেবার বেশ কয়েকবার মাস বাঘটি আশেপাশের জঙ্গলে ঘুরে বেড়িয়েছিল। বাঘের গতিবিধির উপর নজর রাখতে লালগড়ের জঙ্গলে ওড়ানো হয়েছিল ড্রোন ক্যামেরাও। শেষপর্যন্ত অবশ্য মৃত্যু হয়েছিল বাঘটির।  তবে এবার বাঘ নয়, এবার শাবককে সঙ্গে নিয়ে একটি বাঘিনী ঢুকে পড়েছে লালগড়ের জঙ্গলে। তেমনটাই অনুমান বনদপ্তরের।