তাণ্ডব চালিয়েও কাজ হাসিল হল না কিছুই। গৃহবধুদের পরাক্রমের কাছে হার মানল ডাকাত দল। বসিরহাটে রায়বাড়ির ছেলের বউরা আজ এক এক জন সাহসিনী। 
রাত তখন একটা। ঘরে হঠাৎই তালা ভেঙে ঘরে ঢুকে পড়ে কিছু সশস্ত্র দুষ্কৃতী। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঘরের পুরুষদের ওপর হামলা চালায় সশস্ত্র দুষ্কৃতীরা। লোহার রড,ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয় তাঁদের। এরপর যে নগদ হাতানোর পালা বুঝতে দেরি হয়নি গৃহবধুদের। সঙ্গে সঙ্গে স্বামীরদের পাশে দাঁড়ান গৃহবধুরা। মধ্য়রাতে বসিরহাটের বাঁকড়া চৌমাথায় শুরু হয় গৃহস্থ বনাম ডাকাত যুদ্ধ। ঘরের বৌরা যে এভাবে ডাকাত দলের মোকাবিলায় নামবে,তা ঠাওর করতে পারেনি ডাকাত গ্য়াংও। প্রথমে পুরুষদের মাথা পিস্তলের বাঁটদিয়ে ফাটিয়ে দেয় দুষ্কৃতীরা। কিন্তু গৃহবধূরা স্বামীদের সঙ্গে রুখে দাঁড়ালে পিছু হটতে বাধ্য় হয় ডাকাতরা।

আরও পড়ুন : ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়ার কাছে বন্দুক- গুলি, দুর্গাপুরে হাতেনাতে গ্রেফতার, দেখুন ভিডিও

আরও পড়ুন : দিদিকে বলোর পর এবার 'দাদাকে বলো'

বাড়ির বড় ছেলে বিদ্য়ুৎ রায় জানিয়েছেন,লোহার রড দিয়ে তাঁর মাথা ফাটিয়ে দেয় ডাকাতরা। সবাই মিলে সশস্ত্র ডাকাতদের প্রতিরোধ করায় পালিয়ে যেতে বাধ্য় হয় তারা। মুখে কালো কাপড় বাধা থাকায় দুষ্কৃতীরা এলাকার কিনা চিনতে পারেননি তিনি। পাল্টা তাদের ধরতে গেলে বোমা মারে ডাকাতরা। পরে পুলিশ এসে আহতদের বসিরহাট হাসপাতালে নিয়ে যায়। ডাকাতদের তাণ্ডবে আহত হয়েছেন রায় পরিবারের ৫ সদস্য়। ডাকাত দলের তাণ্ডব দেখে এলাকায় আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। তবে যেভাবে স্বামীর সঙ্গে কাঁধ মিলিয়ে ডাকাত দলকে প্রতিরোধ করেছেন  গৃহবধূরা তা দেখে অবাক হয়েছেন অনেকেই। যদিও এলাকাবাসীদের অনেকের মতে,পুরোনো শত্রুতার জেরেও এই কাজ হয়ে থাকতে পারে। সেকারণেই হয়তো কিছু না নিয়েইপালিয়ে গেছে দুষ্কৃতীরা। ইতিমধ্য়েই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। কে বা কারা এর পিছনে রয়েছে জানতে রায় বাড়ির সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়েছে।