আপামোর বাঙালির সর্বশ্রেষ্ঠ উৎসব হল দুর্গোৎসব। আর এই দুর্গাপুজোকে কেন্দ্র করে বাঙালির উন্মাদনা কিছু কম থাকে না। সাবেকি হোক বা থিম পুজো, দুর্গাপুজোকে কেন্দ্র করে প্রতি বছরই ধরা পড়ে নিখুঁত সব শিল্পক লার। এইভাবেই অভিনব শিল্পকলা ধরা পড়েছে পূর্ব বর্ধমান জেলার ময়ুরমহল মৈত্রী সঙ্ঘেরয়। 

এবারে তাদের পুজোর বিশেষ থিম হল, 'এবার পুজোর ভীড়ে, বাবুই পাখির নীড়ে'। পরিবেশ দূষণের কারণে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে একের পর এক বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, তার মধ্য়ে অন্যতম হল বাবুই পাখি। বর্তমানে বাবুই পাখির বাসা একেবারেই বিলুপ্তির পথে, যার ফলে গাছের ডালে আর দেখা মেলে না উল্টোনো কুঁজোর মতো নিখুঁত সেই বাসা। মূলত পরিবেশের দূষণের ভাবনা থেকেই তাঁদের থিমে উঠে আসছে অভিনব এই বার্তা।

আরও পড়ুন- স্বস্তিক চিহ্নের সঙ্গে ছৌ-এর অপূর্ব মেলবন্ধন দেখতে আসতেই হবে জগাছা ইউথ কেয়ারের পুজোয়

আরও পড়ুন- দূষণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে ব্লকপাড়া সর্বজনীন দুর্গোৎসবের এবারের থিম 'আনন্দলোকে আনন্দময়ী'

 

ফোম, নেট, প্লাই-এর মতো জিনিসের সাহায্যে মণ্ডপটি তৈরি হচ্ছে বাবুই পাখির বাসার আদলে। মণ্ডপের ভিতরেও তৈরি হবে ছয়টি বড় মাপের বাবুই পাখির বাসা। মণ্ডপের সামনের দিকে থাকবে বিশালাকার ডানা যুক্ত একটি বড় মাপের বাবুই পাখি। মন্ডপের ভিতরে থরে থরে সজ্জিত গাছ। আর সেই গাছেই দেখা যাবে বাবুই পাখির বাসা। তবে এই পুজোয় প্রতিমা কিন্তু পুরোপুরি সাবেক ধাঁচের নয়, প্রতিমায় থাকবে আধুনিকতার ছোঁয়া। ময়ুরমহল মৈত্রী সঙ্ঘের দুর্গা পুজো এবার সপ্তম বর্ষে পদার্পন করল। বলাই বাহুল্য তাঁদের পথ চলা সবে শুরু। কিন্তু এই স্বল্প পরিসরের মধ্যেই গত বছর বর্ধমান জেলার সেরার সেরা শিরোপা জিতে নিয়েছিলেন তারা। যার পুরস্কার হিসাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের হাত থেকে ৫০ হাজার টাকা স্মারক পুরস্কার পেয়েছিলেন তাঁরা। 

আরও পড়ুন- পুজোতে গ্রামীণ জীবন শৈলীর নিদর্শন তুলছে ব্যান্ডেল অধিবাসীবৃন্দ

আরও পড়ুন- প্লাস্টিকের কবল থেকে পরিবেশকে বাঁচাতে অভিনব উদ্যোগ, হারিয়ে যাওয়া দিনের গল্প শোনাবে পুয়াবাগান সর্বজনীন

পরিবেশ নিয়ে থিমের পাশাপাশি পরিবেশ নিয়েও যথেষ্ট সচেতন ময়ুরমহল মৈত্রী সঙ্ঘ। আর সেই কারণে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দিন বর্ধমানের পুলিশ সুপার এবং জেলা শাসক-সহ আরও মাননীয় অতিথিদের হাতে চারা গাছ উপহার স্বরূপ তুলে দেবেন তাঁরা। এবং সেইসঙ্গে বৃদ্ধাশ্রমের কয়েকজন সদস্যদের হাতেও বস্ত্র তুলে দেবেন বলে জানিয়েছেন তাঁরা।