''বাংলায় গুন্ডারাজ চলছে। সবরকম চেষ্টা হয়েছে, যাতে আমরা এই সভা স্থলে পৌঁছতে না পারি''। ডায়মন্ড হারবারে বিজেপির জনসংযোগ কর্মসূচি থেকে এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ আনলেন জেপি নাড্ডা। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি মা দূর্গার নাম নিয়ে বলেন, ''মা দূর্গার অশে, কৃপা ছিল বলে এখানে পৌঁছতে পেরেছি। এই গুন্ডারাজ শেষ করতেই হবে'। এখানেই শেষ নয়, জেপি নাড্ডা এদিন তাঁর বক্তব্যের শুরু থেকেই কাটমানি থেকে শুরু করে বাংলার আইন-শৃঙ্খলা এবং আমফান দুর্নীতি নিয়ে কড়া তোপ দাগেন। 

আরও পড়ুন-নাড্ডার সফরে হামলার প্রতিবাদ বাংলা জুড়ে, ফুঁসছে রাজ্য-বিজেপি

দুদিনের বাংলা সফরে বুধবারই কলকাতায় পৌঁছেছেন জে পি নাড্ডা। বৃহস্পতিবার তাঁর সফরের দ্বিতীয় দিন। আর এই দিনেই তাঁর সভা ছিল তৃণমূল সাংসদ অভিশেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী ক্ষেত্র ডায়মন্ড হারবারে। এদিন সকালে সেই সভাস্থলে পৌঁছোনের সময় শিরাপোলে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের বিক্ষোভের মুখে পড়ে নাড্ডার কনভয়। যাতে সওয়ারি ছিলেন বিজেপির সমস্ত শীর্ষ নেতৃত্ব। ছিলেন রাজ্য বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়, রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ, বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুল রায়। শীর্ষস্থানীয় রাজ্য বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। প্রত্যেকেই গাড়িতেই পাথর, ইট ও কোল্ড ড্রিঙ্কসের বোতল নিক্ষেপ করা হয়। এইসব জিনিসের আঘাতে কৈলাস বিজয়বর্গীয়, দিলীপ ঘোষ, অনুমপ হাজরা-র গাড়ির সামনের কাঁচ সাইডের জানালার কাঁচ এবং পিছনের কাঁচ ভেঙে যায়। গাড়ির ভিতর ঢুকে যায় গাদা ইটের টুকরো এবং কোল্ড ড্রিঙ্কসের ভাঙা কাচের বোতল। ভাঙা কাঁচের বোতলে ক্ষতবিক্ষত হন দিলীপ ঘোষ এবং কৈলাস বিজয়বর্গীয়র গাড়ির নিরাপত্তারক্ষীরা। এমনকি, জেপি নাড্ডার গাড়ি লক্ষ্য করে ছোঁড়া হয় ইট, ছোট বাঁশের টুকরো দিয়ে আঘাত করা হয় গাড়িতে এবং থুতু ও পানের পিক ছুঁড়ে ফেলা হয় গাড়ি লক্ষ্য করে। রেহাই পায়নি পুলিশের গাড়ি, সংবাদ মাধ্যমের গাড়ি, এবং বিজেপির আরও বেশ কিছু নেতার গাড়িও। বলতে গেলে কয়েক মিনিটে ধুন্ধুমার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল শিরাকোলে।

আরও পড়ুন-নাড্ডার কনভয়ে 'হামলা', রাজ্য়ের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে টুইট-বোমা ধনখড়ের

সভাস্থলে পৌঁছে জেপে নাড্ডা বলেন, তৃণমূলের আশ্রিত দুষ্কৃতীদের জন্য তাঁর সভাস্থলে পৌঁছতে দেরি হয়ে গিয়েছে। এরজন্য তিনি ক্ষমাপ্রার্থী। তিনি আরও বলেন, ''রাজ্যে আইন-শৃঙ্খলার যে পরিস্থিতি তাতে কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে ঘোরা ছাড়া কোনও নিরাপত্তা নেই''। তিনি বলেন, ''বাংলার সভ্যতা ও সংস্কৃতি জননী। অথচ, বাংলাকে অধপতনের চূড়ান্ত জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাই বিজেপি সামনের নির্বাচনে জয়ী হয়ে সোনার বাংলা তৈরি করবে''। 

আরও পড়ুন-আজ মুখ্যমন্ত্রীর 'ভাইপো'-র পাড়ায় নাড্ডা, সভা ঘিরে সাজো সাজো রব ডায়মন্ড হারবারে

আমফান দুর্নীতি নিয়ে ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ''ঘূর্ণীঝড়ের টাকা কেউ পাচ্ছে না। অথচ, নরেন্দ্র মোদী তাঁর দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সেই অর্থ রাজ্য সরকারকে দিয়ে দিয়েছে। অথচ, ঘূর্ণীঝড়ের সেই আর্থিক ক্ষতিপূরণ দুর্গতদের কাছে পৌঁছয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুধু নিতে জানেন, কিন্তু সেই অর্থ সাধারণ মানুষের হাতে পৌঁছে দেওয়ার কোনও চেষ্টাই তিনি করেননি। এমন সরকারের পতন হওয়াই উচিত। ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্রের যিনি সাংসদ তাঁকেও কখনও দেখা যায় না''। সেই কারণে বিজেপিকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান জেপি নাড্ডা। এদিকে, তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সুব্রত মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, যাঁরা এই ঘটনায় দোষী, ''তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে''।