করোনা সতর্কতায় এবার হুগলির আরামবাগ শহরকে ঘিরে ফেলল প্রশাসন। শহরের প্রবেশ পথে ১২টি জায়গায় বসল লকগেট। লকগেটে সর্বক্ষণ চলবে পুলিশের কড়া নজরদারি। 

আরও পড়ুন: ২০ জনের বেশি যাত্রী নয়,গ্রিন জোনে চলবে বেসরকারি বাস

হুগলির আরামবাগে এখনও পর্যন্ত কেউ করোনা আক্রান্ত হননি। কিন্তু লকডাউনের মাঝে এই শহর পেরিয়ে নিজের নিজের জেলায় ফিরেছেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা। তবে পুলিশের নজরদারি বা তল্লাশি অবশ্য এড়াতে পারেননি তাঁরা। কিন্তু তাতে কি আর সংক্রমণ ঠেকাতে রাখা যাবে! সম্প্রতি হুগলি জেলার সবকটি পুর এলাকাকেই 'কন্টেনমেন্ট জোন' হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। বাদ যায়নি আরামবাগও। শহরকে সুরক্ষিত রাখতে প্রশাসনের তৎপরতাও বেড়েছে। মঙ্গবার থেকে কাজে নেমে পড়েছেন আরামবাগ পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান রাজেশ চৌধুরী। নিজে দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করছেন লকগেটগুলির।

আরও পড়ুন: সোমবার থেকে খোলা থাকবে পাড়ার সব ছোট দোকান, বুধবার নবান্নে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

আরও পড়ুন: রাজ্য়ে ৭০০ ছাড়াল করোনা আক্রান্ত, বলছে কেন্দ্রের রিপোর্ট

একদিকে পূর্ব বর্ধমান আর অন্যদিকে পশ্চিম বর্ধমান। হুগলির আরামবাগ মহকুমা দক্ষিণবঙ্গের 'প্রবেশদ্বার'। মহকুমার চারটি থানায় এলাকাতেই রয়েছে অন্য জেলার সীমানা। এমনকী, কলকাতা থেকে সড়কপথে আরামবাগ পেরিয়ে যাওয়া যায় বর্ধমান, মেদিনীপুর, বীরভূম এবং বাঁকুড়ায়। আগামী দিনে এই মহকুমা সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিতে লকগেট বসানো হবে বলে জানা গিয়েছে।