পঞ্চায়েত নির্বাচনে রাজ্যের কমবেশি সব জেলাতেই বিজেপি-র উত্থান ঘটলেও পুরুলিয়ায় তাক লাগানো ফল করেছিল পদ্ম শিবির। পঞ্চায়েত নির্বাচনের তিনটি স্তরেই তৃণমূলের সঙ্গে কার্যত সমানে সমানে পাল্লা দিয়েছে বিজেপি। যা উদ্বেগ বাড়িয়েছে রাজ্যের শাসক দলের।

আগামী বারো মে পুরুলিয়া আসনে ভোট. বুধবার সেই পুরুলিয়ায় ভোট প্রচারে গিয়ে আদিবাসীদের মন জয় করার চেষ্টা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিবেশী ঝাড়খণ্ডের উদাহরণ দিয়ে দাবি করলেন, বিজেপি সরকার সেখানে আদিবাসীদের জমি দখল করে নিয়েছে, সেখানে বাংলায় রাজ্য সরকার আইন করে আদিবাসীদের জমির অধিকার দিয়েছে। একই সঙ্গে গেরুয়া  ঝড় আটকাতে মমতা অভিযোগ করেন, ঝাড়খণ্ড থেকে বহিরাগতদের এনে পুরুলিয়ায় অশান্তি পাকাচ্ছে বিজেপি। পুরুলিয়ার কোটশিলার জনসভায় তিনি বলেন, ক্ষমতায় এলে আদিবাসীদের আরও জমি মোদী কেড়ে নেবেন। 

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলের দিকে তাকালে পুরুলিয়া আসন নিয়ে শাসক দলের উদ্বেগের কারণ স্পষ্ট হবে। বিরোধীরা সব আসনে মনোনয়ন জমা না দিতে পারার পরেও পুরুলিয়ায় মোট ১৯২১টি গ্রাম পঞ্চায়েত আসনে নির্বাচন হয়েছিল। এর মধ্যে বিজেপি দখল করে ৬৪৪টি আসন। পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদ স্তরেও দারুণ ফল করেছিল গেরুয়া শিবির। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পরে  এবং লোকসভা নির্বাচনের মধ্যেই পুরুলিয়ায় একই কায়দায় দুই বিজেপি কর্মীর গাছের ডালে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। যা নিয়ে দলের সর্বভারতীয় নেতারাও সরব হন। ফলে, পুরুলিয়া আসনে এবার প্রকৃতই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই।

এ দিন তাই পুরুলিয়ায় গিয়ে গেরুয়া শিবিরকে প্রবল আক্রমণ করেন মমতা. ভোট এলেই বিজেপি ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করেন বলে অভিযোগ করেন মমতা। সম্প্রতি জয় শ্রীরাম কাণ্ড নিয়ে বার বার মমতাকে বিঁধেছেন নরেন্দ্র মোদী- অমিত শাহরা। এ দিন তার জবাব দিয়ে মমতা বলেন, যে যাঁর পছন্দ অনুযায়ী দেবতার পুজো করবেন। মমতার কথায় "আমরা সব দেবতাকে ভালবাসি।" 

একই সঙ্গে বর্তমান রাজ্য সরকারের আমলে পুরুলিয়া-সহ জঙ্গলমহলে শান্তি ফিরিয়ে আনার কথাও মনে করিয়ে দেন তিনি। পুরুলিয়ায় পর্যটন শিল্পের উন্নতিতে রাজ্য সরকার উদ্যোগী হয়েছে বলেও দাবি করেন মমতা। একই সঙ্গে প্রবল গরমের মধ্যে সাত দফা নির্বাচন করার জন্যও নরেন্দ্র মোদীর  বিরুদ্ধে সরব হন তিনি। অভিযোগ করেন, নরেন্দ্র মোদী দেড় মাস ধরে ঘুরে  বেড়াবেন বলেই সাত দফায় নির্বাচন হচ্ছে।