আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: টোটো ধাক্কা মেরেছিল দোকানে। টোটোর চাবি কেড়ে নেওয়াতেই কি পিটিয়ে খুন করা হল দোকান মালিককে? ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে বীরভূমের মল্লারপুরে। এলাকায় মোতায়েন প্রচুর পুলিশ।  

আরও পড়ুন: ভাটপাড়ায় প্রকাশ্যে গুলিবিদ্ধ তৃণমূল নেতা, কাঠগড়ায় বিজেপি সাংসদের অনুগামীরা

মৃতের বাম শ্যামল বিস্তার। বাড়ি, মল্লারপুরের গোড়লা গ্রামে। এলাকায় একটি ছোট গুমটি দোকান চালান শ্যামল। মঙ্গলবার সকালে বেপরোয়া গতিতে এসে সেই দোকানে ধাক্কা মারে একটি টোটো। টোটোটি পাশের গ্রাম গাজিপুরের বাসিন্দা ছোটন শেখের, তিনিই চালাচ্ছিলেন। টোটোর ধাক্কা দোকানে বেশ কিছু অংশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। রাগে চোটে ছোটনের কাছ থেকে গাড়ির চাবি কেড়ে নেন শ্যামল। ঘটনার জেরে রীতিমতো উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।  নিজের এলাকা থেকে লোকজন নিয়ে এলে শ্যামলকে, ছোটন বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ। 

আরও পড়ুন: ইতিহাসে অবিশ্বাস্য নম্বর, মাধ্যমিকে তাক লাগালো তৃতীয় স্থানাধিকারী অরিত্র মাইতি

মল্লারপুরের গোড়লা গ্রামের বাসিন্দা অরুণ বিস্তার বলেন, 'গ্রামের রাস্তার ধারে দোকান হলেও কোনদিন কোন গাড়ির ধাক্কা লাগেনি।আমি সঙ্গে সঙ্গে মধ্যস্থতা করে চাবি ফিরিয়ে দিই। কিন্তু টোটো চালক হুমকি দিতে দিতে গ্রামে গিয়ে লোকজন ডেকে নিয়ে মারধর শুরু করে। প্রত্যেকের হাতে ছিল লোহার শাবল, রড, বাঁশ। যাকে পেয়েছে তাঁকে মেরেছে।' গুরুতর আহত অবস্থায় শ্যামল বিত্তার ও অরুণ বিশ্বাসকে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় সাঁইথিয়া গ্রামীণ হাসপাতালে। পরে সিউড়ি হয়ে স্থানান্তরিত করা হয় বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। বর্ধমানে মেডিক্যালে মারা যান শ্যামল বিস্তার। অরুণের অবস্থায় গুরুতর।