হাসপাতালে নয়, সাপ ছোবল মারার পর দম্পতিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল ওঝার বাড়িতে। কুসংস্কারের বলি হলেন এক প্রৌঢ়। হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন তাঁর স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার বসিরহাটে।

আরও পড়ুন: আক্রান্তের সংখ্যা তেরশোরও বেশি, সরকারি হাসপাতালে এবার বন্ধ সোয়াব টেস্টও

জানা গিয়েছে, বসিরহাটের মাটিয়া থানা এলাকার বাসিন্দা সফিকুল দফাদার ও তাঁর স্ত্রী খাদিজা বিবি।  রোজকার মতো মঙ্গলবার মশারি টাঙিয়ে শুয়েছিলেন স্বামী-স্ত্রী। কোনওভাবে মশারি ভিতর ঢুকে পড়ে একটি সাপ! ঘটনাচক্রে ঠিক তখনই আচমকা ঘুম ভেঙে যায় সফিকুলের। সাপ দেখে রীতিমতো আর্তনাদ শুরু করে দেন তিনি। চিৎকার শুনে পাশের ঘর থেকে ছুটে আসেন পরিবারের অন্যন্যরা। এরইমধ্যে আবার অসুস্থ হয়ে পড়ে সফিকুলের স্ত্রী খাদিজা। সাপে কামড়ালো না তো? হাসপাতালে নয়, তাঁকে তড়িঘড়ি নিয়ে যাওয়া হয় ওঝার বাড়িতে। সঙ্গে যান সফিকুলও। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি।

আরও পড়ুন: তাল কাটল ছন্দে, বিজেপিতে উল্টো সুর মুকুলের

ওঝার বাড়িতে যাওয়ার কিছুক্ষণ অসুস্থ বোধ করেন সফিকুলও। স্ত্রীর মতো তাঁকেও সাপে কামড়েছে অনুমান করে শুরু হয় ঝাঁড়ফুক।  দীর্ঘক্ষণ ঝাড়ফুঁক চলার পর শেষপর্যন্ত বুধবার দুপুরে ওঝার বাড়িতেই সফিকুল মারা যান। এরপরই টনক নড়ে পরিবারের লোকেরা। খাদিজা বিবিকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। চিকিৎসা চলছে তাঁর। এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে এলাকায়। ক্ষুদ্ধ বিজ্ঞানমঞ্চের সদস্যরা।