মারণ ভাইরাস ঢুকেছে মালদহে। বিপদ কম নয় পড়শি জেলা উত্তর দিনাজপুরেও। ইটাহারে এবার করোনায় আক্রান্ত হলেন এক পরিযায়ী শ্রমিক। তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে রায়গঞ্জে করোনা হাসপাতালে। উত্তরবঙ্গের দুই জেলার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে প্রশাসনের।

আরও পড়ুন: এবার মুর্শিদাবাদে করোনা পজিটিভ ৪, এলাকা সিল করল প্রশাসন

জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত ওই ব্য়ক্তির বাড়ি ইটাহারের দুর্লভপুর পঞ্চায়েতের নদনা গ্রামে। গুজরাতের আহমেদাবাদে শহরে পরিযায়ী শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে গিয়েছিলেন তিনি। লকডাউন জারি হওয়ার পর যখন ফিরছিলেন, তখনই ঘটে বিপত্তি। বিহারের কিষাণগঞ্জে ধরা পড়েন ওই পরিযায়ী শ্রমিক। কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রেখে লালারস বা সোয়াব পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এরপর অ্যাম্বুল্যান্সে চাপিয়ে তাঁকে পত্রপাঠ উত্তর দিনাজপুরের ইটাহারে একটি কোরায়েন্টাইন সেন্টারে পাঠিয়ে দেয় বিহার প্রশাসন। খবর পাওয়ামাত্রই জেলা প্রশাসনও তৎপর হয়। তড়িঘড়ি ওই পরিায়ী শ্রমিককে নিয়ে আসা হয় রায়গঞ্জে করোনা হাসপাতালে। সেখানে দ্বিতীয় দফায় পরীক্ষায়ও করোনা পজিটিভি রিপোর্ট আসে। 

আরও পড়ুন: করোনা আক্রান্ত এবার বারাসাতের এক চিকিৎসক, সিল করে দেওয়া হল পুরো এলাকা

আরও পড়ুন: সুস্থ সন্তানের জন্ম দিলেন করোনা আক্রান্ত মহিলা, স্বস্তিতে পরিবার

উত্তর থেকে দক্ষিণ। যতদিন যাচ্ছে, এ রাজ্যের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। রেহাই পাচ্ছেন না চিকিৎসক ও নার্সরাও। ব্যতিক্রম ছিল উত্তর দিনাজপুরে। 'গ্রিনজোন'-এ চালু হয়ে গিয়েছিল সরকারি বাস পরিষেবা। শুক্রবার রায়গঞ্জ ও হেমতাবাদ ব্লকে তিনজন করোনা আক্রান্তের হদিশ মেলে।  তাঁরা সকলেই কলকাতা চাকরি করতেন। লকডাউনের মাঝে সাইকেল চালিয়ে ফিরে আসেন। এই নিয়ে জেলায় সংক্রমিত হলেন চারজন। করোনা সংক্রমণ ছড়াচ্ছে মালদহেও। স্রেফ হরিশ্চন্দ্রপুরেও আক্রান্ত হয়েছেন ১১ জন। গৌড়কন্যা বাসস্ট্যান্ড থেকে যাঁদের সোয়াব বা লালারস পরীক্ষা করা হয়েছিল, তাঁদের মধ্যে ৫ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। আক্রান্তের সকলেই পরিযায়ী শ্রমিক বলে জানা গিয়েছে।