নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বুধবার রাজ্যসভায় পাশ হওয়ার পর থেকেই বদলাতে থাকে অসমের চেহারা। ভয়াল আকার ধারণ করেছিল পথঘাট। শুক্রবারই সেই চিত্র ফুঁটে উঠতে দেখা যায় পশ্চিমবঙ্গের বেশ কিছু জেলায়। ট্রেন লাইন অবরোধ করে ব্যহত হয় পরিবহণ। রাস্তায় রাস্তায় জ্বালিয়ে দেওয়া হয় বাস, গাড়ির টায়ার।

শুক্রবার থেকে কেটে গিয়েছে তিন দিন। কিন্তু এখন অশান্ত রাজ্য। জেলায় জেলায় চলছে বিক্ষোভ মিছিল, প্রতিবাদের নামে চলছে তাণ্ডব। এমনই পরিস্থিতিতে বিপর্যস্ত স্বাভাবিক জীবনযাপন। রবিবারও শান্ত হল না রাজ্য। এদিন সকাল থেকেই একাধিক বিক্ষোভের ছবি উঠে আসে খবরের শিরোনামে। এদিন উত্তর ২৪ পরগনার আমডাঙার সোনাডাঙ্গায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে সিএবি এবং এনআরসি বিরোধী আন্দোলনকারীরা । রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়, ফেলা হয় গাছ। এর জেরেই প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা অবরুদ্ধ হয়ে থাকে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক।

আরও পড়ুনঃ বাংলায় কি রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হবে, জল্পনা উস্কে দিলেন রাজ্যপাল

রবিবার সকালেই মধ্যমগ্রাম চৌমাথা ফের টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখায় বিক্ষোভকারিরা। অশান্ত বীরভূমের মুরারই, মিত্রপুর ও হিয়াতনগর মোড়ে রাস্তায় জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। মুর্শিদাবাদের মোড়গ্রাম জাতীয় সড়ক আটকে বিক্ষোভ দেখায় আন্দোলনকারিরা। অশোকনগরের নৈহাটি এলাকাতেও এদিন সকাল থেকে তাণ্ডবের চিত্র ফুঁটে ওঠে। দঃ ২৪ পরগনার হটুগঞ্জ এলাকাতে বিক্ষোভের সৃষ্টি হয়।  মালদার ভালুকা রোডে ট্রেন আটকে বিক্ষোভ দেখানো হয়। 

আরও পড়ুনঃ প্রতিবাদের নামে তাণ্ডব, বিক্ষোভের জেরে রবিবারও বাতিল একাধিক ট্রেন

পরিস্থিতি ক্রমেই জটিল হয়ে ওঠে শুক্রবার বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে। রবিবার বিভিন্ন স্থানে অপৃতিকর ঘটনাকে কেন্দ্র করে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা শীঘ্রেই শান্ত হওয়া প্রয়োজন। শনিবার গণতান্ত্রিক পথে আন্দোলনের আর্জি জানান রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হক, সমাজের বিশিষ্টজনেরা বার্তা দিচ্ছেন বিক্ষোভকারিদের উদ্দেশে। শান্ত হক বাংলা, বার্তা এশিয়ানেট নিউজ বাংলার।