আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: খরচ নেহাত কম হয়নি। করোনা সংক্রমণ রুখতে পুরসভা ও লাগোয়া সবজিবাজারে জীবাণুনাশক সুড়ঙ্গ বা টানেল বসিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু সেই টানেলে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের ছবি কেন? বিতর্ক তুঙ্গে বীরভূমের রামপুরহাটে।

আরও পড়ুন: পরিযায়ী শ্রমিকদের লোকালয়ে ঢুকতে বাধা, জঙ্গলে তাঁবু খাটিয়ে শুরু কোয়ারান্টাইন

গ্রিনজোনের তকমা ঘুচে গিয়েছে। মুম্বই যোগে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে বীরভূমেও। এখনও পর্যন্ত জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ছয়। জানা গিয়েছে, সংক্রমণের আশঙ্কায় রামপুরহাট শহরের সবজিবাজারটি সরিয়ে আনা হয়েছে পুরসভার মাঠে। বাজারে প্রতিদিন প্রায় হাজার খানেক মানুষের জমায়েত হয়। তাতেও তো বিপদ বাড়তে পারে। তাহলে উপায়? দুই লক্ষেরও বেশি টাকা খরচ করে দুটি জীবাণুনাশক সুড়ঙ্গ বা টানেল বসানো হয়েছে। একটি সবজিবাজারে ঢোকার মুখে, আর একটি পুরসভার ভিতরে। এই টানেলের ভিতর দিয়ে হেঁটে যাঁরা পুরসভায় কিংবা বাজারে ঢুকবেন, তাঁরা সম্পূর্ণভাবে স্যানিটাইজড হয়ে যাবেন। 

তা তো না হয় বোঝা গেল, কিন্তু সরকারি খরচে বসানো টানেলে গায়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও দলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের ছবি কেন? ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অনেকেই। বিজেপি-র বীরভূম জেলা সহ-সভাপতি  শুভাশিস চৌধুরী বলেন, 'সব কিছুতেই রাজনীতির রং লাগাচ্ছে রামপুরহাট পুরসভা। তা না হলে বুকে তৃণমূলের ব্যাজে কেন অনুব্রত মণ্ডলের ছবি লাগানো হবে।' অবিলম্বে সুড়ঙ্গে দেওয়াল থেকে ছবি সরানোর দাবি তুলেছেন তিনি। 

আরও পড়ুন: সন্তানকে দেখতে চাই, মুখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় কাতর আবেদন মায়ের

আরও পড়ুন: লকডাউনে লাটে উঠেছে ব্যবসা, বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে বাজি ব্যবসায়ীরা

কী বলছেন তৃণমূল পরিচালিত রামপুরহাট পুরসভার চেয়ারম্যান অশ্বিনী তিওয়ারি? তাঁর পাল্টা প্রশ্ন, 'অনুব্রত মণ্ডল রাজ্য গ্রামীণ উন্নয়ন পর্ষদের চেয়াম্যান। তাঁর ছবি দিতে বাধা কোথায়? দু'দিন পর বিরোধীরা তো মুখ্যমন্ত্রী ছবিতেও আপত্তি করবে। আসলে ওরা ভালো কাজ দেখতে পায় না।'