এ রাজ্যে এখনও পর্যন্ত কোনও পুলিশকর্মী বা আধিকারিক করোনায় আক্রান্ত হননি। কিন্তু যদি কেউ সংক্রমিত হন, তাহলে কী হবে! আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে আলাদা কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চালু হল উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে।

আরও পড়ুন: ফের শিলিগুড়িতে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা, খতিয়ে দেখলেন করোনা পরিস্থিতি

লকডাউনে প্রত্যাহারের আপাতত কোনও সম্ভাবনা নেই বলেই চলে। বরং যতদিন যাচ্ছে,  রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে উঠছে। বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও। জরুরি কাজে দিল্লিতে গিয়েছিলেন এ রাজ্যে কর্মরত বেশ কয়েকজন আরপিএফ জওয়ান।  ফেরার পর ৯ জনের শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তাঁদের মধ্যে ৬ জনই আবার পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়গপুর ডিভিশনে কর্মরত। করোনা সতর্কতায় খড়গপুর ও মেদিনীপুরে স্টেশনের নিরাপত্তার দায়িত্বপ্রাপ্ত সমস্ত আরপিএফ জওয়ানকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে কোয়ারেন্টাইনে। এমনকী, বেশ কয়েকটি ব্যারাকও সিল করে দিয়েছে প্রশাসন।

আরও পড়ুন: রাজ্য়ে মৃত বেড়ে ২২, বাংলায় করোনা আক্রান্ত ৫২২

আরও পড়ুন: কলকাতায় কোভিড চিকিৎসায় হাসপাতালের বেডের কী অবস্থা,জেনে নিন সেই কাহিনি

পুলিশকর্মীদের বিপদও তো কম নয়। লকডাউন সফল করতে রাজ্যে সর্বত্রই ডিউটি করতে হচ্ছে তাঁদের। রাস্তায় তো থাকছেনই, প্রয়োজন পড়লে পুলিশকর্মীদের যেতে হচ্ছে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারেও। ফলে সংক্রমণের আশঙ্কা ষোলোআনা। উত্তর দিনাজপুর জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরে সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে গোয়ালপোখরের পাঞ্জিপাড়া এলাকায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চালু করল ইসলামপুর জেলা পুলিশ। বেডের সংখ্যা ১৫টি। উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর পুলিশ জেলার সুপার শচিন মক্কর জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত কোনও পুলিশকর্মী করোনায় আক্রান্ত হননি। আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চালু করা হয়েছে। যদি কোনও পুলিশ কর্মী সংক্রমিত হন, তাহলে তাঁকে সেখানে রাখা হবে। 

উল্লেখ্য, উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রশাসনের কোনও বদলে হয়নি। তবে কাজের সুবিধার জন্য ইসলামপুর মহকুমার অন্তর্গত থানাগুলিকে নিয়ে আলাদা একটি পুলিশ জেলা গঠন করা হয়েছে।