মাধ্যমিকের ফল যখন হয়ে গিয়েছে, তখন আর অপেক্ষা কীসের! সরকারি নির্দেশ না মেনে লকডাউনের মাঝেই মার্কশিট বিলি করল স্কুল কর্তৃপক্ষ। বাধ্য হয়ে স্কুলে আসতে হল অভিভাবকদের। ঘটনায় বিতর্ক তুঙ্গে হুগলির হরিপালে। বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন ডিআই নজরুল হাকি সেপাই।

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কের ঘটল বিপর্যয়, লালারস পরীক্ষার আগেই আত্মঘাতী প্রৌঢ়

করোনা আতঙ্কের মাঝেই ১৫ জুলাই প্রকাশিত হয়েছে এবছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল। পাশের হারে নয়া রেকর্ড গড়েছেন পড়ুয়ারা। ইন্টারনেট থেকে বিষয়ভিত্তিক প্রাপ্ত নম্বরও জেনে গিয়েছেন সকলেই। কিন্তু মার্কশিট কবে পাওয়া যাবে? প্রথমে ২৩ জুলাই স্কুল থেকে মার্কশিট বিলির কথা ঘোষণা করে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। কিন্তু সেদিন আবার লকডাউন জারি হয়ে যায়। এরপর ২৪ জুলাই মার্কশিট বিলি করা কথা জানানো হয়। কিন্তু তেমনটা আর হল কই!

আরও পড়ুন: শিক্ষাঙ্গনে বিলুপ্তপ্রায় জনজাতির কিশোরী, মাধ্য়মিক উত্তীর্ণার পড়াশোনার খরচ দেবেন বিধায়ক

বৃহস্পতিবার  লকডাউনে যখন অঘোষিত বনধের চেহারা নিয়েছিল গোটা রাজ্য, তখন অভিভাবকরা ভিড় করেছিলেন হরিপালের গুরুদয়াল ইনস্টিটিউশন। পর্ষদের নির্দেশ অগ্রাহ্য করেই মার্কশিট চলল স্কুলে। এমনকী, দেওয়া হল একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির ফর্মও! কয়েকজন অভিভাবক মার্কশিটের সঙ্গে একদশ শ্রেণীর ফর্মও নিয়ে গেলেন। ঘটনায় মাথাছাড়া দিয়েছে বিতর্ক।  কী বলছেন হুগলি জেলার স্কুল পরিদর্শক বা ডিআই? ডিআই নজরুল হাকি সেপাই বলেন, লকডাউনের জন্য বৃহস্পতিবারের পরিবর্তে শুক্রবার মার্কশিট দেওয়ার নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে। তা সত্ত্বেও কেন বৃহস্পতিবার মার্কশিট দেওয়া হল, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।