বাড়িতে অভাব! তার উপর থাবা বসিয়েছে করোনা আবহ। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় যথেষ্ট উপার্জন চেষ্টায় কাজ খোঁজার চেষ্টা হলেও সুফল মেলেনি। অগত্যা বাড়ি ছেড়ে ভিন রাজ্যে পাড়ি দিতে হচ্ছে বাংলার শ্রমিকদের। দেবভূমি উত্তরাখণ্ডে কাজের খোঁজে দিয়ে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মধ্যে পড়লেন এ রাজ্যের দুই জেলার ৬ জন শ্রমিক। উত্তরাখণ্ডের তপোবন জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রেই কাজ করতেন ওই শ্রমিকরা। বিপর্যয়ের পর তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পেরে দুঃশ্চিন্তায় পরিবার।

আরও পড়ুন-দলের মনোবলে ঘাটতি হলে মেজাজ হারান নেতারা, বেলাগাম কু-কথায় আক্রমণ করেন প্রতিপক্ষকে

রবিবার দিন স্বাভাবিক অবস্থাতেই ছিল পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলের লক্ষ্য়া গ্রামে। দুপুরের পর টিভির পর্দায় চোখ পড়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের। উত্তরাখণ্ডে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের খবর চাউর হতেই ছন্দপতন হয় গুড়িয়া পরিবারের। আর হবে নাই বা কেন? উত্তরাখণ্ড জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে ওয়েল্ডিংয়ের কাজ করতেন ঘরের ছেলেরা। চকদ্বাড়িবেড়িয়া গ্রামের সুদীপ গুড়িয়া, ট্যাংরাখালি গ্রামের লালু জানা, বুলা জানা সহ চার জন। তারপর থেকেই টিভিতে খবরের চ্যানেল থেকে চোখ সরাচ্ছেন না তাঁদের গোটা পরিবার। তপোবনের ওই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে নিখোঁজ শতাধিক কর্মী। বিপর্যয়ের জেরে মাথায় হাত পড়েছে পরিবারের।

আরও পড়ুন-মমতার সঙ্গে দীর্ঘ ২২ মিনিটের সাক্ষাত, পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম, তৃণমূলে ফিরছেন কি BJP-র ২ বিধায়ক

অন্যদিকে, পুরুলিয়া থেকে উত্তরাখণ্ডে কাজে গিয়ে সমস্যায় পড়েছেন আরও দুই শ্রমিক। প্রাকৃতিক বিপর্যের পর থেকেই নিখোঁজ রয়েছেন তাঁরা। সুমন্ত ও অশ্বিনী তন্তুবায় নামে দুই যুবক ঠিকাদার সংস্থার অধীনে দেবভূমিতে কাজ করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু রবিবার বিপর্যয়ের পর থেকেই মুখে অন্ন দিতে পারছে না গোটা পরিবার।