গভীর রাতে অস্বাভাবিকভাবে চিৎকার করছিল পাড়ার একটি কুকুর। তা শুনে সন্দেহ হওয়ায় বেরিয়ে আসেন স্থানীয় বাসিন্দারা। কুকুরটির কাছে যেতেই অবাক হয়ে যান তাঁরা। দেখেন কনকনে ঠান্ডার মধ্যেই চাদর জড়ানো অবস্থায় রাস্তার পাশের মাঠে পড়ে রয়েছে একটি শিশু। সদ্যোজাত ওই শিশুটিকে দেখেই আগলে রেখেছে ওই সারমেয়টি। 

এমনই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল উত্তর চব্বিশ পরগণার বসিরহাটের সংগ্রামপুরে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, শিশুটির বয়স খুব বেশি হলে পনেরো থেকে কুড়ি দিন হবে। কনকনে শীতের রাতে ওই কন্যাসন্তানকে কেউ বা কারা ফেলে দিয়ে গিয়েছিলেন মাঠের মধ্যে। অন্ধকারের মধ্যে কারা এই কাজ করেছেন, এলাকাবাসী তা বুঝতে পারেননি। কুকুরটি ওই সদ্যোজাতকে আগলে রেখে এলাকাবাসীকে সতর্ক না করলে কী হতো, তা ভেবেই আঁতকে উঠছেন সবাই। 

আরও পড়ুন- ভরা শীতেও ফাঁকা হাজারদুয়ারি, বেলাগাম তাণ্ডবের ফল ভুগছে মুর্শিদাবাদ

আরও পড়ুন- বড়দিন উপলক্ষে ওদের ভুরি ভোজ , পেট ভরে খেল পথের সারমেয় বাহিনী

স্থানীয় বাসিন্দারাই প্রথমে শিশুটিকে উদ্ধার করে কম্বলে জড়িয়ে শুশ্রুষা শুরু করেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় বসিরহাট থানার পুলিশ। শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য বসিরহাট মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের সুপার শ্যামল হালদার জানিয়েছেন, শিশুটি সুস্থ থাকলেও তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। যেহেতু শীতের রাতে খোলা আকাশের নীচে শিশুটি পড়েছিল, তাই তাকে সুস্থ রাখতে চিকিৎসার সবরকম ব্যবস্থাই করা হয়েছে। ফুটফুটে ওই শিশুটিকে হাসপাতালের নার্সরাও আগলে রেখেছেন। হাসপাতালে ভর্তি অন্যান্য প্রসূতিদের সাহায্যে তাকে দুধও খাওয়ানো হচ্ছে। 

কে বা কারা ওই শিশুটিকে ফেলে দিয়ে গেল, তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। তবে যার সৌজন্যে শিশুটি উদ্ধার হল, সেই সারমেয়টির অবশ্য বিশেষ হেলদোল নেই। অন্যান্য দিনের মতো রবিবার সকালেও পাড়াতেই ঘুরে বেড়িয়েছে সে। যদিও সারমেয়র বুদ্ধির প্রশংসায় পঞ্চমুখ এলাকার বাসিন্দারা। খুশি হয়ে অনেকেই এ দিন সকাল থেকে তাকে বিস্কুটও খেতে দিয়েছেন!