কার্ফুতে সাড়া দিয়ে মাংসের দোকানে ভীড়। জনতার  করনো সংক্রমণ মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ডাকা কার্ফুতে ব্যাপক সাড়া পড়লেও রবিবার  সকাল থেকেই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ঘাটাল মহকুমার মুরগি মাংসের দোকানে উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেল। শতাধিক  মানুষ জমায়েত হয়ে  লাইন দিয়ে মুরগি কেনার এমনই চিত্র দেখা গেল ক্ষীরপাই, চন্দ্রকোনা, ঘাটাল বেশ কয়েকটি এলাকায়। 

আরও পড়ুন, করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ফি ৪৫০০ টাকার বেশি যেন না হয়, কড়া নির্দেশ বেসরকারি ল্যাবকে

এদিন দোকানপাট বন্ধ, দেখা মিলেনি বেসরকারি বাসের। যদিও পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘাটাল সেন্ট্রাল বাস স্ট্যান্ড থেকে চলছে হাতে গোনা কয়েকটা দক্ষিণবঙ্গ পরিবহন সংস্থা সরকারি বাস। বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে মেদিনীপুর থেকে আদ্রা গামী সমস্ত ট্রেন। রীতিমতো মাইকিং করে শনিবার থেকেই বাজার বন্ধের নির্দেশিকা জারি করেছে বিভিন্ন ব্যবসায়ী সমিতি। তবে এর মধ্যেও উপচে পড়া ভিড় মেদিনীপুর চন্দ্রকোনা সহ একাধিক জায়গায় মুরগি দোকানগুলিতে। মুখে মাস্ক দিয়ে মাংস কিনতে ব্যস্ত মানুষ। যদিও এই বিষয়ে এক মুরগি ব্যবসায়ী অমিয় বেরা  বলেন, মাংসের জন্য বাড়িতে গিয়ে লোক ডাকাডাকি করছে। দোকানে এসে দেখি প্রচুর ভিড় তাই এই অল্প টাইম খুলে রেখেছি দোকান।

আরও পড়ুন, করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মোদীর আহ্বানে সাড়া , জনতা ফারফিউতে কার্যত স্তব্ধ তিলোত্তমা

 এদিকে ক্রেতাদের দাবি, কার তো কি হয়েছে, তা বলে মাংস খাওয়া চলবে না। তাই মাংস কিনতে বেরিয়েছি,। বিশিষ্ট জনের মত সকলে সচেতন হলেই তবে এই ভাইরাস রোগ আটকানো যাবে। সরকারের তরফ থেকে বারেবারে ঘোষণা করা হচ্ছে সকলেই এটি মেনেছে কিন্তু  মুরগি বিক্রেতা ও ক্রেতারা মানেনি। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের ব্যবস্থা নেয়া উচিত। ঘাটাল মহকুমার বিশিষ্ট আইনজীবী, সমীর কুমার ঘোষ বলেন, জনগণের স্বার্থে সরকার যে সমস্ত পদক্ষেপগুলি নিয়েছে পদক্ষেপগুলি প্রশংসনীয়, সমস্ত সাধারণ মানুষকেই সরকারি নির্দেশ পালন করা উচিত।

শরীরে কীভাবে থাবা বসায় করোনা, জানালেন বিশেষজ্ঞরা

করোনা মোকাবিলায় রক্ষা করুন নিজেকে, মেনে চলুন 'হু' এর পরামর্শ

আরও পড়ুন, সাবধান, করোনা আতঙ্কের মধ্যে এই কাজ করলেই হতে পারে জেল