Asianet News Bangla

'ভীষণ খুশী', মমতার সরকারের উদ্যোগে হারানো ছেলেকে ফিরে পেল যোগী রাজ্যের পরিবার

  • মূক ও বধির ছেলেকে ফিরে পেল উত্তরপ্রদেশের পরিবার 
  • হারিয়ে যাওয়া সন্তানকে সনাক্ত করে বাড়ি নিয়ে গেলেন বাবা
  •  ৪ বছর আগে হারানো ছেলেকে ফিরে পেয়ে আপ্লুত সবাই
  • সেই কিশোর মানস এখন ১৮ বছর পার করে সাবালক 
Uttar Pradesh's family has found their lost son at the initiative of the WB government RTB
Author
Kolkata, First Published Jun 25, 2021, 5:17 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp


রাজ্য সরকারের মানবিক প্রকল্পের উদ্যোগ নিতেই প্রায় চার বছর পর হারিয়ে যাওয়া মূক ও বধির ছেলে অঙ্কিতকে ফিরে পেল উত্তরপ্রদেশে থাকা তার পরিবার। রায়গঞ্জ কর্নজোড়ায় মূক ও বধির হোমে এদিন টি আই প্যারেডের মাধ্যমে নিজের হারিয়ে যাওয়া সন্তানকে সনাক্ত করে বাড়ি নিয়ে গেলেন উত্তরপ্রদেশের গোন্ডা জেলার তরফগঞ্জ থানার গোহানি গ্রামের বাসিন্দা অঙ্কিতের বাবা যোগেন্দ্র পান্ডে। 

আরও পড়ুন, কোভিশিল্ড-কোভ্যাকসিন নয়, কসবাকাণ্ডে দেওয়া হয়েছিল কি ভ্যাকসিন, আতঙ্কে কাঁটা মানুষ 


 উত্তর দিনাজপুর জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষ থেকে হোমে থাকা মুক ও বধির ছেলে অঙ্কিতকে তার বাবার হাতে তুলে দেওয়া হয়। প্রায় চার বছর পর হারিয়ে যাওয়া ছেলেকে ফিরে পেয়ে আপ্লুত উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা যোগেন্দ্র পান্ডে বিশেষ ধন্যবাদ জানালেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সরকারকে। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের  ১৭ সেপ্টেম্বর উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ থানার হাড়িপুকুর এলাকায় উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায় কথা বলতে না পারা মূক ও বধির এক কিশোরকে। জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটি ওই কিশোরকে উদ্ধার করে এনে রাখে রায়গঞ্জ কর্নজোড়ায় মূক ও বধির আবাসিক বিদ্যালয়ের হোমে। তার নাম দেওয়া হয় মানস সরকার। 

আরও পড়ুন, 'বাংলাকে হেয় করাই উদ্দেশ্য', জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রাজ্য সফরে বিস্ফোরক তৃণমূল 

সেই কিশোর মানস এখন ১৮ বছর পার করে সাবালক। এতদিন ধরে হোমেই চলছে তার পড়াশুনা থাকা খাওয়া। এইসব সাবালক মূক ও বধির যুবকদের রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে মানবিক ভাতা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটির পক্ষ থেকে মানসের মানবিক ভাতা করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। তাঁর আধার কার্ড তৈরি করতে গেলেই ধরা পড়ে মানসের আসল নাম অঙ্কিত পান্ডে। উত্তরপ্রদেশের গোন্ডা জেলার তরফগঞ্জ থানার গোহানি গ্রামের বাসিন্দা সে। তার নামেই ইতিমধ্যেই আধার কার্ড ইস্যু হয়ে গিয়েছে। এরপর তদন্তে নামে উত্তর দিনাজপুর  জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটি। ২৩/০৪/২১ তারীখে জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটি থেকে সোস্যাল ইনভেস্টিগেশন রিপোর্ট পাঠানো হয় উত্তরপ্রদেশের তরফগঞ্জ থানায়। 

আরও পড়ুন,সবটাই BJP-তৃণমূলের খেলা', 'রাজ্যপাল' ও 'চীনা আগ্রাসন' ইস্যুতে অধীরের নিশানায় মোদী-মমতা


 উত্তর দিনাজপুর জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটির চেয়ারম্যান অসীম রায় বলেন, সেখান থেকে জানা যায় অঙ্কিত পান্ডের বাবা যোগেন্দ্র পান্ডে একজন কৃষিজীবি। গত ২৬/০৮/১৭ সালে ছেলে অঙ্কিত হারিয়ে যাওয়ার একটি মিসিং ডায়েরি করা হয়েছিল উত্তরপ্রদেশের তরফগঞ্জ থানায়। এরপর উত্তরপ্রদেশের তরফগঞ্জ থানা থেকে গত ১৭/০৬/২১ তারীখে রিপোর্ট আসে উত্তর দিনাজপুর জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটির কাছে। উত্তরপ্রদেশের তরফগঞ্জ থানা এবং উত্তর দিনাজপুর জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটি যৌথ সমন্বয়ের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয় উত্তরপ্রদেশের গোন্ডা জেলার তরফগঞ্জ থানার গোহানি গ্রামের বাসিন্দা অঙ্কিতের বাবা যোগেন্দ্র পান্ডের সঙ্গে। 

আরও পড়ুন, ভাইরাল হওয়া অডিও ক্লিপে অস্বস্তিতে তৃণমূল, তীব্র কটাক্ষ BJP-র  


এদিন যোগেন্দ্র পান্ডে এসে পৌঁছান রায়গঞ্জের কর্নজোড়ায় সূর্যোদয় হোমে উত্তর দিনাজপুর  চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটির অফিসে। হোমে টি আই প্যারেডের মাধ্যমে যোগেন্দ্র পান্ডে সনাক্ত করেন চার বছর আগে হারিয়ে যাওয়া মূক ও বধির ছেলে অঙ্কিতকে।  এরপর প্রয়োজনীয় বিধি নিয়ম মেনে জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটি উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা যোগেন্দ্র পান্ডের হাতে তাঁর ছেলে অঙ্কিতকে তুলে দেয়। উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা যোগেন্দ্র পান্ডে প্রায় চার বছর পর হারিয়ে যাওয়া ছেলেকে ফিরে পেয়ে ভীষণ খুশী।  ধন্যবাদ জানালেন এ রাজ্যের সরকার তথা উত্তর দিনাজপুর জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটিকে।
 

 

আরও পড়ুন, ভাইরাসের ভয় নেই তেমন এখানে, ঘুরে আসুন ভুটানে  

আরও পড়ুন, রাজ্য়ের সর্বনিম্ন সংক্রমণ এই জেলায়, বৃষ্টিতে হারাতেই পারেন পুরুলিয়ার পাহাড়ে 

আরও দেখুন, বৃষ্টিতে বিরিয়ানি থেকে তন্দুরি, রইল কলকাতার সেরা খাবারের ঠিকানার হদিশ  

আরও দেখুন, কলকাতার কাছেই সেরা ৫ ঘুরতে যাওয়ার জায়গা, থাকল ছবি সহ ঠিকানা 

আরও পড়ুন, বনগাঁ লোকাল নয়, জাপানে ঠেলা মেরে ট্রেনে তোলে প্রোফেশনাল পুশার, রইল পৃথিবীর আজব কাজের হদিস 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios