ধেয়ে আসছে সুপার সাইক্লোন আমফান। ইতিমধ্যেই সতর্কতা জারি করা হয়েছে উপকূলবর্তী এলাকাতে। মঙ্গলবার দুপুর থেকেই বৃষ্টি শুরু হল নামখানা, বকখালি, ফ্লেজারগঞ্জ এলাকাতে। এদিন সকাল থেকেই মাইং শুরু হয় উপকূল বর্তী অঞ্চলে। ভয়াবহ সাইক্লোনের মুখ থেকে বাঁচাতে সমুদ্রের ধারে থাকা মানুষদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ত্রাণ শিবিরে। ইতিমধ্যেই তিন লক্ষ মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সমুদ্রে যাওয়ার ওপরও জারি করা হয়েছে নিশেষেধাজ্ঞা। 

বুলবুল, ফণী, আয়লার ভয়াবহতা আজও উপকূলবর্তী এলাকার মানুষের মনে তরতাজা। সেই স্মৃতি আবারও ফিরতে চলেছে। আবহাওয়া দফতরের মতে আয়লার থেকেও ভয়াবহ হতে চলেছে আমফান। ভয়ে কাঁপছে মন্দারমণির জলদা গ্রামের বাসিন্দারা। সেখানে স্থানীয় বাঁধ তিন ভয়াবহ ঝড়েই ভেঙেছে। যার ফলে প্লাবিত হয়েছে গোটা গ্রাম। সেই বাঁধকেই এবার মজবুত করার কাজ করছেন গ্রামের মানুষেরা। 

আরও পড়ুনঃ শহরে বৃষ্টি- দমকা হাওয়া শুরু জেলায়, অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে আমফান

নিজেরাই বস্তাতে বালি ভরে বাঁধের সামনে রাখছেন। তাঁদের ধারণা এই বাঁধ আবারও ভাঙতে পারে। তাই তৎপর হয়েছেন সাধারণ মানুষেরাই। ইতিমধ্যেই কাঁচা বাড়িতে থাকা মানুষদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আমফানের প্রভাবে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে পরিস্থিতি। বুধবার দুপুরেই ধ্বংসলীলা চালাবে আমফান। যার ফলে ঢেউয়ের উচ্চতা হতে পারে সর্বাধিক ১৮ ফুট পর্যন্ত। ফলে প্লাবিত হতে পারে একাধিক গ্রাম। ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে মানুষকে সতর্ক করার কাজ। 

করোনা মোকাবিলায় রক্ষা করুন নিজেকে, মেনে চলুন 'হু' এর পরামর্শ

সাবধান, করোনা আতঙ্কের মধ্যে এই কাজ করলেই হতে পারে জেল

কী করে করোনার হাত থেকে রক্ষা করবেন আপনার বাড়ির বয়স্ক সদস্যদের, রইল তারই টিপস

শরীরে কীভাবে থাবা বসায় করোনা, জানালেন বিশেষজ্ঞরা