মঙ্গলবার বেলা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গেই বদলে গেল আকাশের চেনা ছবি। এদিন সন্ধ্যের মধ্যেই আঁছড়ে পড়তে চলছে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়। বর্তমানে এই ঝড় দিঘা থেকে মাত্র ৬৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত আমফান ক্রমেই শক্তি বাড়িয়ে এগিয়ে আসছে স্থলভাগের দিকে। স্থলভাগে তাঁর গতিবেগ হতে পারে ১৮৫ কিলোমিটার। ইতিমধ্যেই একাধিক এলাকাতে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। 

আরও পড়ুনঃ শহরে বৃষ্টি- দমকা হাওয়া শুরু জেলায়, অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে আমফান

আমফান ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বুধবার। তাই রাজ্য সরকার যেন এদিন কোনও দোকান খোলার অনুমতি না দেন, সেই দিকে লোকপাত করল এবার হাওয়া অফিস। বুধবার শহরের বুকে আমফানের গতিবেগ হতে পারে ১৩০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায়। ফলে এদিন যেন প্রতিটা মানুষ বাড়িতেই থাকেন, এমনটাই উপদেশ দেওয়া হল রাজ্য সরকারকে। শহর কলকাতা ছাড়াও সতর্কতা জারি করা হয়েছে দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলাতে। দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগণা, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, হাওড়া ও হুগলিতে তাণ্ডপ চালাতে পারে আমফান। পাশাপাশি ওড়িশার ১০টি জেলাতেও থাকছে বিপদের সংকেত।

ইতিমধ্যেই পরিস্থিতির দিকে কড়া নজর দিয়েছে রাজ্য সরকার। কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে নবান্ন। মাইকিং করে একাধিক এলাকায় মানুষকে সতর্ক করা হচ্ছে। দিঘা এবং বাংলাদেশের হাতিয়ার মধ্যে দিয়ে স্থলভাগে আঁছড়ে পড়বে এই ঝড় আর কয়েকঘণ্টার মধ্যেই। বুধবার সকাল থেকেই কলকাতায় বাড়তে থাকবে বাতাসের গতিবেগ। বর্তমানে একাধিক জরুরী বৈঠক করে দফায় দফায় ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে পরিস্থিতি। প্রস্তুত রয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনিও। 

করোনা মোকাবিলায় রক্ষা করুন নিজেকে, মেনে চলুন 'হু' এর পরামর্শ

সাবধান, করোনা আতঙ্কের মধ্যে এই কাজ করলেই হতে পারে জেল

কী করে করোনার হাত থেকে রক্ষা করবেন আপনার বাড়ির বয়স্ক সদস্যদের, রইল তারই টিপস

শরীরে কীভাবে থাবা বসায় করোনা, জানালেন বিশেষজ্ঞরা