সম্পত্তি নিয়ে পরিবারে অশান্তি চলছিল। তার জেরেই কি খুন হয়ে গেলেন? বাড়ি থেকে যুবকের নলিকাটা দেহ উদ্ধার করল পুলিশ। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মুর্শিদাবাদের সূতিতে। মৃতের দিদি ও জামাইবাবুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন:বিধায়ক বনাম অঞ্চল সভাপতি, ভাঙরের পর শাসক দলের গোষ্ঠী-সংঘর্ষে রণক্ষেত্র এবার মুর্শিদাবাদ

মৃতের নাম শুকচাঁদ ঘোষ। বাড়ি, সুতির বাজিতপুর গ্রামে। তাঁর বাবা সমীর ঘোষ এলাকায় প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, পরিবারের লোকের সঙ্গে তেমন বনিবনা ছিল না শুকচাঁদের। কয়েক বছর আগে বাড়িতে অশান্তি করে দিল্লিতে চলে যান তিনি। বাড়ির সঙ্গে ওই যুবকের কোনও যোগাযোগ ছিল না বলেই চলে। লকডাউন জারি হওয়ার পর সম্প্রতি বাড়ি ফেরেন শুকচাঁদ। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি।

আরও পড়ুন:শালবনে 'পতঙ্গ সমাবেশ', পঙ্গপালের আতঙ্ক ছড়াল বাঁকুড়ায়

জানা গিয়েছে, ছেলে দিল্লি চলে যাওয়ার পর খোকন দাস নামে এক যুবকের সঙ্গে মেয়ে উমার বিয়ে দেন সমীরবাবু। স্বামীর সঙ্গে বাপের বাড়িতে থাকেন ওই তরুণী। শ্বশুরের সম্পত্তির দিকে নজর ছিল জামাই-এর। নানাভাবে সমীরকে ভুল বুঝিয়ে খোকন সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছিলেন বলে অভিযোগ। বাড়ি ফেরার পর বিষয়টি টের পেয়েছিলেন শুকচাঁদ। তিনি যখন প্রতিবাদ করেন, তখনই অশান্তি শুরু হয় পরিবারে। শেষপর্যন্ত মঙ্গলবার রাতে ঘর থেকে ওই যুবকের নলিকাটা দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, মৃতের জামাইবাবুই নাকি এলাকায় রটিয়ে দিয়েছিলেন যে শুকচাঁদকে পাওয়া যাচ্ছে না। পরে আবার আত্মহত্যার কথাও বলেন তিনি। সন্দেহ হওয়ায় সুতি থানায় খবর দেন প্রতিবেশীরাই।