ভোটগ্রহণের পর, পাশের এক কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থীর স্ত্রীর গাড়িতে ইভিএম নিয়ে যাচ্ছিলেন রাতাবাড়ী আসনের একটি পোলিং বুথের প্রিজাইডিং অফিসার। এই অভিযোগে তীব্র বিতর্কের জন্ম হয়েছে অসমে। শুক্রবার এই প্রেক্ষিতে অসমের ওই বুথে পুনর্নির্বাচনের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ভোটযন্ত্রে কারচুপি করার চেষ্টা করার জন্যই ওই গাড়িতে তোলা হয়েছিল, এই অভিযোগে করিমগঞ্জ জেলার ওই বুথে নির্বাচনী টিমকে ঘিরে আক্রমণাত্বক হয়ে উঠেছিলেন স্থানীয় জনতা। পুলিশকে লাঠি চালিয়ে সামলাতে হয়।

এক বিবৃতিতে কমিশন জানিয়েছে, প্রিজাইডিং অফিসার এবং আরও তিন ভোটকর্মীকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। ইভিএমের সিল অক্ষত থাকলেও, অতিরিক্ত সতর্কতা হিসাবেই রতাবাড়ি কেন্দ্রের ইন্দিরা এম ভি স্কুলে ফের ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই বিষয়ে বিশেষ পর্যবেক্ষকের কাছ থেকে রিপোর্টও চাওয়া হয়েছে।

কিন্তু, কেন বিজেপি প্রার্থীর সস্ত্রীর  গাড়িতে তোলা হল ভোট যন্ত্র? কমিশন জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় ভোট শেষের পর, প্রিজাইডিং অফিসার ও তিনজন ভোট-কর্মী রয়েছে এবং এক কনস্টেবল  ও হোমগার্ড, নির্বাচন কমিশনের গাড়িতে করেই যাাচ্ছিলেন। কিন্তু প্রচন্ড বৃষ্টিতে তাদের গাড়িটি খারাপ হয়ে যায়। সেক্টর অফিসার নতুন গাড়ির ব্যবস্থা করার মধ্যেই, ইভিএম দ্রুত স্ট্রং রুমে পৌঁছানোর জন্য, তারা নিজেরাই রাাস্তা থেকে একটি গাড়ি দাঁড় করিয়ে ইভিএম নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

আরও পড়ুন - নিশানায় কমিশন থেকে অমিত শাহ - মুক্তি পেয়েই হুঙ্কার ছাড়লেন মমতা, অট্টহাসি শুভেন্দুর

আরও পড়ুন - নন্দীগ্রামে মমতা কি হারের ভয় পাচ্ছেন - ভরসার তালিকায় কেন এখন রাজ্যপাল, আদালত আর সুদীপ জৈন

আরও পড়ুন - শুভেন্দু অধিকারীর গাড়িতে 'পাকিস্তানি'দের হামলা - ইটের ঘায়ে ভাঙল কাচ, অক্ষত বিজেপি নেতা

করিমগঞ্জের কাছাকাছি এক জায়গায় ট্রাফিক জ্যামের জন্য দাঁড়াতেই, রাস্তার লোক তাদের ঘিরে ধরেছিল। ভোট কর্মীরা জানতে পেরেছিলেন, গাড়িটি পাশের আসন পাথরকান্দির বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণেন্দু পালের স্ত্রীর গাড়ি। তারপরই শুরু হয় ধুন্ধুমার।