দেশের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় সরকারের কী কী পদক্ষেপ নেওয়া উচিৎ তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছে ১২টি বিরোধী দল। তাতে বলা হয়েছে করোনা মহামারির দ্বিতীয় তরঙ্গ দ্রুততার সঙ্গে ছড়িয়ে পড়েছে গোটা দেশে। গোটা বিষয়টিকে 'সর্বজনীন মানব ট্র্যাজেডি ' হিসেবেও বর্ননা করা হয়েছে। আর এই অবস্থায় সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের কাজ অবিলম্বে বন্ধ করা ও কৃষি আইন বাতিল করারও দাবি জানিয়েছে। বিরোধীদের এই চিঠির তীব্র সমালোচনা করেছেন বিজেপির নেতা অখিলেশ মিশ্র। তিনি বলেছেন  বিরোধী রাজনৈতিকদের যৌথ চিঠির সংস্যা হল তাদের একদিন একটা জিনিস সুপারিশ করেন তো পরের দিন অন্য কথা বলেন। বিজেপি নেতার কথায় বিরোধীরা সম্পূর্ণ ইউ টার্ন নেন। তাই তাদের কোনও পরামর্শটা মেনে দেওয়া হবে আর কখন তা মেনে নেওয়া হবে - তাই নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি বলেনে বিরোধীরা যে নটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছে তারও উত্তর দিয়েছেন তিনি। 

এক মাসের জন্যই করোনা লড়াইয়ে হার, মহামারি রুখতে WHO আগেই জরুরি অবস্থা জারি করতে পারত ...

'সরকারি প্রধা ও বিধি লঙ্ঘন করবে', রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের জেলা সফর নিয়ে চিঠি মুখ্যমন্ত্রী মমতার ...

বিরোধীদের এই চিঠিতে সনিয়া গান্ধী থেকে শুরু করে আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল ও বহুজন সমাজ পার্টির নেত্রী মাতাবতীর নাম রয়েছে। বিরোধীদের এই চিঠির বিরুদ্ধে দ্রুততার সঙ্গে আসরে নেমেছে বিজেপি। 

করোনাভাইরাসের 'ভারতীয় রূপ' শব্দে আপত্তি কেন্দ্রের, পূর্ণ সমর্থন WHO-র .

অখিলেশ মিশ্র জানিয়েছেন, এপ্রিলে রাহুল গান্ধী ভ্যাকসিন সংগ্রহের জন্য রাজ্য সরকারগুলিকে উদ্যোগ নিতে বলেছিলেন। এখন চিঠিতে কেন্দ্রকে সেই উদ্যোগ নিতে বলা হচ্ছ। বিজেপির প্রশ্ন তাহলে কার পরামর্শ মানা হবে- রাহুল না সোনিয়ার। 
বিনামূল্যে টিকা দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন সনিয়া গান্ধী। আর অভিষেক মনু সিংভি থেকে শুরু করে শশী থারুর একাধিক নেতা টিকাকরণ নিয়ে একাধিক বক্তব্য রাখছেন। মনীষ তিওয়ারির মত একাধিক কংগ্রেস নেতা আবার দেশীয় টিকাগুলির বিরুদ্ধে প্রথম থেকেই সওয়াল করে যাচ্ছেন। আর তেজস্বী যাদব সব ভ্যাকসিনকেই বিজেপির ভ্যাকসিন বলে তীব্র সমালোচনা করছেন। তাহলে কার কথা মানা হবে- তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন বিজেপি নেতা। পাশাপাশি ভ্যাকসিন বাজেট নিয়েও মুখ খুলেছেন তিনি। বলেছেন, এখনও পর্যন্ত ১৭ কোটিরও বেশি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। তাতে ১৬ কোটিরও বেশি টাকা কেন্দ্রীয় সরকার দিয়েছে। বাজেট বরাদ্দ না করে কী করে ভ্যাকসিন সংগ্রহ করা যাবে তানিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।  

কংগ্রেসসহ বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি দীর্ঘ দিন ধরেই সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রজেক্টের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। মোদীকে লেখা চিঠিতে সেই চিঠির কথাও উল্লেখ করেছেন বিরোধীরা। তার উত্তর দিতে গিয়ে বিজেপি বলেছে সেন্ট্রাল ভিস্তা একটি প্রাক মহামারি  প্রজেক্ট। একটি একটি চলমান প্রকল্প। ফান্ড নিয়ে সনিয়া গান্ধী ও রাজীব গান্ধীর কথাও উত্থাপন কপেন তিনি। বলেছেন অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরি ও সিলিন্ডার কেনায় রীতিমত যত্নবান প্রধানমন্ত্রী মোদী। আর দরিদ্রদের টাকা দেওয়ার প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বিজেপির পক্ষ থেকে বলা শরদ পাওয়ার ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাজের তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে। বলা হয়েছে তারা দরিদ্রদের বঞ্চিত করছেন। মোদী সরকার বিনামূ্ল্যে খাদ্য শস্য বিতরণ করেছে আগামী দিনেও তা করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। কৃষি আইন বাতিল নিয়েও কংগ্রেসের ভোটের ইস্তেহার ও শরদ পাওয়ার আদালা আদালা কথা বলেছেন বলেও অভিযোগ করেন অখিলেশ মিশ্র।