উত্তর গাজিয়াবাদের এক হাসপাতালে নার্সদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করার অভিযোগ উঠেছে ইসলামী মিশনারি সম্প্রদায় তাবলিগি জামাতের কিছু সদস্যের বিরুদ্ধে। এবার তাদের বিরুদ্ধে জাতীয় নিরাপত্তা আইন (এনএসএ)-এর আওতায় মামলা করল যোগী আদিত্যনাথের সরকার। তাদেরকে 'মানবতার শত্রু' বলে সম্বোধন করে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন। জাতীয় নিরাপত্তা আইনে অভিযুক্ত হলে, বন্দিদের বিনা বিচারে এক বছর অবধি আটক রাখা যায়।

এদিন একেবারে রাগে গড়গড় করতে করতে যোগী আদিত্যনাথ বলেন, 'ওরা আইন মেনে চলবে না, আদেশ-ও গ্রহণ করবে না। ওরা মানবতার শত্রু, মহিলা স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে ওরা যা করেছে তা এক জঘন্য অপরাধ। আমরা ওদের বিরুদ্ধে জাতীয় সুরক্ষা আইনে আবেদন করছি, আমরা ওদের ছেড়ে কথা বলব না'।

এর আগে ইন্দোরে তাবলিগি সদস্যদের চিকিৎসা করতে যাওয়া ডাক্তারদের উপর হামলার অভিযোগ উঠেছিল। সেই ঘটনার কথা উল্লেখ করে যোদী বলেন, সেই ধরণের ঘটনা তিনি তাঁর রাজ্যে কোথাও হতে দেবেন না। এর জন্য তাঁর প্রশাসন আইন অনুসারে সমস্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে সাফ জানিয়েছেন তিনি।

লকডাউনই জন্ম করোনা আর কোবিডদের, আলাপ করুন তাদের সঙ্গে

করোনা-রোধে হল না সরায়ুর অমৃত আহরণ, অযোধ্যায় 'ইন্দিরা' অভিশাপে বিদ্ধ মোদী ও যোগী

ভিন রাজ্য থেকে আসা শ্রমিকদের ওপর স্প্রে, যোগীর রাজ্য নিয়ে সরব স্বস্তিকা

দিল্লিতে লকডাউন বিধি অমান্য করেই তাবলিগি জামাত-এর সদর দপ্তরে জড়ো হয়েোছিলেন দেশের এমনকী বিদেশেরও বিভিন্ন প্রান্তের কয়েক হাজার মানুষ। সেই জমায়েত থেকে এখন সারা ভারতে ছড়িয়ে পড়়েছে করোনাভাইরাস। ওি জমায়েত থেকেই উত্তরপ্রদেশে ফিরে আসা কিছু সদস্যকে গাজিয়াবাদের এমএমজি হাসপাতালে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। সেখানে তাঁরা করোনভাইরাসের সাবধানতা লঙ্ঘন করে কর্মীদের বিপদ ডেকে আনছেন। এমনকী, বিচ্ছিন্নতা ওয়ার্ডে নগ্ন হয়ে ঘুরছেন, নার্সদের কাছে বিড়ি ও সিগারেট চাইছেন। ওষুধ খেতে চাইছেন না। এমন সব গুরুতর অভিযোগ  উঠেছে। হাসপাতালের চিফ মেডিকাল অফিসার স্থানীয় থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন।