করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাংসদ তহবিল থেকে ৮০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেছেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে রাজ্যে 'আতঙ্কের পরিবেশ' তৈরি করার চেষ্টা করছেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তাঁর বিরুদ্ধে বাঁকুড়া জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগে অভিযোগ দায়ের করলেন এক যুবক। তদন্তকারী অফিসারকে পাল্টা চ্যালেঞ্জ করেছেন সাংসদ, কটাক্ষ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও।

আরও পড়ুন: চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের দুরাবস্থায় ব্যথিত, থাকা-খাওয়ার দায়িত্ব নিলেন কংগ্রেস নেতা

তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন তিনি। বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর থেকে দ্বিতীয় সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর বারবারই শালীনতার সীমা ছাড়িয়েছে সৌমিত্র খাঁ। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের চেহারা ও শারীরিক গঠন নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করেছিলেন তিনি। মাস খানেক যখন নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সোচ্চার হয়েছিলেন বুদ্ধিজীবীরা, তখন তাঁদের রেয়াত করেননি বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ। সেবার নিজের ফেসবুকে পেজে লাইভ করে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন সৌমিত্র। বিশিষ্টজনদের কটাক্ষ করে বলেছিলেন, 'লাজলজ্জহীনের মতো কথা বলছেন! আপনারা ধান্দাবাজ।' আর এবার মিথ্যা খবর ও গুজব ছড়িয়ে করোনা নিয়ে রাজ্যে আতঙ্কের পরিবেশ তৈরির অভিযোগ উঠল সৌমিত্র খাঁ-র বিরুদ্ধে। সাংসদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়েছে বাঁকুড়া জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগে।

আরও পড়ুন: 'বাড়ির ফেরার ব্যবস্থা করুন', মুখ্যমন্ত্রীর কাছে কাতর আবেদন তৃণমূল কাউন্সিলরের

এদিকে এই ঘটনার পর আবার তদন্তকারী অফিসারকেই পাল্টা চ্যালেঞ্জ করেছেন সাংসদ সৌমিত্র খাঁ।  তাঁর দাবি, 'চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মুখ্যমন্ত্রীর রেনকোট বিলি ও লকডাউনে উপেক্ষা করে মানুষের রাস্তা বেরনো নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছিলেন তিনি। করোনা নিয়ে কোনও ভুল খবর বা গুজব ছড়াননি।' সাংসদের আরও বক্তব্য, এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মিথ্যবাদী। করোনা নিয়ে তিনি সকলেই বিভ্রান্ত করছেন, বিজেপি নেতাদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন।