লকডাউন সফল করতে যখন কম-বেশি লাঠিচার্জ চলছে রাজ্যের সর্বত্রই, তখন পশ্চিম মেদিনীপুরে করোনা নিয়ে মানুষকে সচেতন করতে ভিন্ন পথে হাঁটছে পুলিশ। বাদ নেই ঝাড়গ্রামও। পুলিশকর্মীদের সৌজন্যে চেনা শহর যেন রাতারাতি বদলে গিয়েছে!

আরও পড়ুন: লকডাউন সফল করতে 'গান্ধীগিরি', ফুল-মালা নিয়ে রাস্তায় নামল পুলিশ

কোনও ওষুধ নেই, রোগীর উপসর্গ দেখেই চিকিৎসা করতে হয়। করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সতর্ক থাকা ছাড়া গতি নেই। আর তাতেই ঘুম উড়েছে প্রশাসনের। কারণ, লকডাউনের জারি করেও যে মানুষকে ঘরবন্দি করে রাখা যাচ্ছে না! নানা অছিলায় এখনও রাস্তায় বেরোচ্ছেন অনেকেই। সকাল-সন্ধে আড্ডা বসছে পাড়ায় মোড়ে, চায়ের দোকানে। ভিড় বা জমায়েতকে বাগে আনতে পুলিশ নামাতে হয়েছে। ব্যতিক্রম নয় পশ্চিম মেদিনীপুরও। লকডাউন ভাঙলেই যথারীতি জেলার বিভিন্ন প্রান্তে লাঠিচার্জও করা হচ্ছিল। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এখন পুলিশ কৌশল বদলে ফেলেছে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কে 'ব্রাত্য' জামাই, শ্বশুরবাড়িতে ঠাঁই মিলল না যুবকের

আরও পড়ুন: বিয়ের জন্য জমানো ছিল টাকা, করোনা ত্রাণে এগিয়ে এলেন হবু দম্পতি

দিন কয়েক আগে খড়গপুরে গোলাপ ফুল ও গাঁদার মালা হাতে রাস্তায় নেমেছিলেন পুলিশ আধিকারিকরা। কাউকে গোলাপ ফুল দিয়ে, তো কাউকে মালা পরিয়ে সচেতন করার চেষ্টা চলে রাতভর। আর এবার মেদিনীপুর শহরের গুরত্বপুর্ণ রাস্তার মোড়ে আঁকা হল আলপনা। রাস্তায় বেরোলে সেই আলপনা দিকে তো মানুষের চোখ যাবেই, তাতে যদি সচেতনতা বাড়ে! মঙ্গলবার সকালে করোনা ভাইরাস নিয়ে আলপনা চোখে পড়েছে ঝাড়গ্রাম শহরের রাস্তায়ও।