রবিবার বিশ্বকাপ ২০১৯-এর ফাইনালে সেরা হয়েছেন বেন স্টোকস। ৮৪ রানের একটি দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন তিনি। কিন্তু , সেসব ছাপিয়ে গিয়েছে  শেষ ওভারে তাঁর বিতর্কিত ছয় রানে। আর সেই বিতর্কের সূত্র ধরেই ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে এসে পড়লেন দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা!

ফাইনালে শেষ ওভারে ইংল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল ১৫ রান। প্রথম দুটি বলে কোনও রান না হওয়ায় মনে করা হয়েছিল, নিউজিল্যান্ড ম্যাচটা জিতেই নিয়েছে। কিন্তু তৃতীয় বলে ছয় মেরে ম্যাচে প্রাণ ফিরিয়ে নিয়ে আসেন স্টোকস। তবে তারপরেও তিন বলে নয় রান করতে হত।

চতুর্থ বলটি ডিপ মিডউইকেটে ঠেলে দুটি রানের জন্য দৌড়ান স্টোকস। প্রথম রানটা সম্পূর্ণ করে দ্বিতীয় রান নেওয়ার সময়ই মার্টিন গাপ্টিল উইকেটরক্ষকের প্রান্তে বল ছোড়েন। ক্রিজে ঢোকার জন্য মরিয়া হয়ে ঝাঁপ মেরেছিলেন স্টোকস। গাপ্টিলের ছোড়া বল আশ্চর্যজনকভাবে লাগে স্টোকস-এর ব্যাটে। আর তারপর থার্ডম্যান এলাকা দিয়ে বাউন্ডারি পেরিয়ে যায়।

আম্পায়ররা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে ওভার থ্রো-এর পেনাল্টি-সহ ছয় রান দেন। রানটা ছয় দেওয়া উচিত ছিল না পাঁচ - সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠলেও ওই ছয় রানের দৌলতেই শেষ দুই বলে আরও দুই রা যোগ করে ম্যাচ টাই করেছিল ইংল্যান্ড। আর তারপর সুপার ওভার ও বাউন্ডারি গণনার পর বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়।

আপো পড়ুন - সেরা বিশ্বকাপ একাদশ, সচিনের বাছাই! আট নম্বরের চমকে ভারতকে বার্তা

আপো পড়ুন - পরাজয়ের চরম হতাশা, শিশুদের চাঞ্চল্যকর পরামর্শ দিলেন কিউই ক্রিকেটার

আরো পড়ুন - ফাইনালেও মস্ত বড় ভুল! আম্পায়ারিং ঠিক হলে আগেই হেরে যেত ইংল্যান্ড

এই ঘটনা অনেককেই ১৯৮৬ সালের ফুটবল বিশ্বকাপের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে। সেই দিন আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ছিল ইংল্যান্ডই। ইংরেজ বক্সে একি উঁচু করে তোলা বল রেফারির নজর এড়িয়ে হেড দেওয়ার ভঙ্গি করে হাতে লাগিয়ে বল জালে জড়িয়ে দিয়েছিলেন মারাদোনা। পরে মারাদোনাই বলেছিলেন সেই হাতটা ছিল 'ঈশ্বরের হাত'।

'হ্যান্ড অব গড'-এর অনুকরণেই বেল স্টোকসের ব্যাটকে এখন বলা হচ্ছে 'ব্যাট অব গড' বা 'ঈশ্বরের ব্যাট'। ফুটবল মাঠে ঈশ্বর ইংরেজদের বিপক্ষে থাকলেও ক্রিকেট মাঠে তিনি ব্রিটিশদেরই জিতিয়েছেন। এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় দারুণ আকর্ষণীয় সব মিম তৈরি হয়েছে। অনেকে আবার এই তুলনার বিরোধিতা করে বলেছেন মারাদোনা হাত দিয়ে গোল করেছিলেন ইচ্ছে করে। কিন্তু, স্টোকস জানতেন না বলটি তাঁর হাতে ব্যাটে লেগে চার হয়ে যাবে।