পাকিস্তান ম্যাচে হ্যামস্ট্রিং-এ চোট পেয়েছিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। তারপর থেকে টানা দুই ম্যাচ তাঁর জায়গায় খেলেছেন বাংলার পেসার মহম্মদ শামি। কিন্তু তারপরেও ম্যাচের সেরার পুরস্কার জোটেনি তাঁর। গ্রাস ছিনিয়ে নিয়ে গিয়েছেন বুমরা ও কোহলি। কিন্তু ম্যাচ সেরার ট্রফি জিততে  না পারলেও পর পর দুই ম্যাচে আগুনে বোলিং স্পেল করে সমর্থকদের হৃদয় জিতে নিয়েছেন শামি। তাঁকে সেরা বেছে না নেওয়ায় ক্ষুব্ধ সেই ভক্তকূল।

সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের প্রশ্ন ম্যাচের সেরা হতে গেলে আর কী করতে হবে শামিকে? প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের হাত থেকে প্রায় ম্যাচ বেরিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু ডেথে চমৎকার বল করেন বুমরা ও শামি। শেষ ওভারে হ্য়াটট্রিক করে ম্যাচ জেতান শামি। তবে এটা ঠিক বুমরা খেলার শেষ দিকে দুটি দুর্দান্ত দুটি ওভার না করলে হয়ত হ্যাটট্রিক করার সুযোগটাই পেতেন না শামি। তাই সেই ম্য়াচে সেরার পুরস্কার বুমরাকে দেওয়া নিয়ে শামি-ভক্তদের খুব একটা অভিযোগ নেই।

তবে, ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে ম্য়াচে শামির পরিবর্তে বিরাট কোহলিকে ম্যাচের সেরার পুরস্কার দেওয়া নিয়ে আপত্তি উঠেছে। ওয়েস্টইন্ডিজের বিরুদ্ধে ম্যাচে বিরাট ৮২ বলে ৭২  রান কতরেন। তাঁর ইনিংসই ভারতীয় ইনিংসের মেরুদণ্ড বলা যায়। সেই রানের উপর ভর করে ভারত ২৬৮ রান তোলে। ওল্ড ট্রাফোর্ডের পিচ মন্থর ছিল। সেই উইকেটে ভারতের রানটা নেহাত কম না হলেও ওয়েস্টইন্ডিজের পক্ষে তাড়া করাটা খুব কঠিন ছিল না।

আরও পড়ুন - হ্যাটট্রিক-এর আগে মাহিভাই-এর পরামর্শেই কেটে গিয়েছিল দ্বিধা! কী এমন বলেছিলেন ধোনি

আরও পড়ুন - মাঠে আগুন ছোটাচ্ছেন শামি, হাসিন বলছেন 'বেহায়া', 'নির্লজ্জ'

আরও পড়ুন - বিশ্বকাপে সুযোগ আসবেই, শামিকে তৈরি থাকতে বলেছিলেন সচিন

শামি ও বুমরা শুরু থেকেই ক্যারিবিয়ান ব্যাটারদের এতটুকু হাত খোলার জায়গা না দিয়ে সেই কাজটাই বেশ কঠিন করে দেন। বিশেষ করে শামির বল থেকে ।যেন আগুন ঝড়ছিল। ক্রিস গেইল, শাই হোপ, শিমরণ হেটমায়ারের মতো প্রথম সারির ওয়েস্টইন্ডিজ ব্যাটসম্যানদের ফিরিয়ে দেন শামি। সঙ্গে নেন ওশেন থমাসের উইকেটও। সব মিলিয়ে ৬.২ ওভারে মাত্র ১৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন তিনি।

কিন্তু, তারপরেও বিরাট কোহলিকেই ম্যাচের সেরার পুরস্কার দেওয়া হয়। সাধারণত জয়ের ক্ষেত্রে যার অবদান বেশি থাকে তাঁকেই সেরা বেছে নেওয়া হয়। মন্থর উইকেটে বৃহস্পতিবার কোহলি দারুণ ব্যাট করেছেন এই নিয়ে কোনও প্রশ্নই নেই। কিন্তু তারপরেও ভারতকে কিন্তু ম্যাচ জেতান বোলাররাই। আর তার নেতৃত্বে ছিলেন শামি। কাজেই বৃহস্পতিবার অবশ্যই তাঁর ম্য়াচের সেরার ট্রফি জেতা উচিত ছিল।

শামি ভক্তরা অবশ্য এতে দমে যাচ্ছেন না। কেউ কেউ বলছেন তিনিই ভারতীয় বোলিং বিভাগের সচিন তেন্ডুলকর। কেউ বলছেন এভাবে চললে তিনি ম্য়াচের সেরা না সিরিজ সেরা হবেন। কেউ আবার মনে করিয়ে দিয়েছেন, চেতন শর্মা যে ম্য়াচে হ্যাটট্রিক করেছিলেন, ওই ম্যাচেই শতরান করেছিলেন গাভাস্কার। সেরার পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল দুজনকেই।