লাদাখ সীমান্তে ভারত-চিন সংঘর্ষের পরই দেশ জুড়ে চিনা দ্রব্য বর্জনের ডাক ওঠে। আইপিএল  থেকেও চিনা স্পনসর বাতিল করার দাবি তোলা হয়। দীর্ঘ টালবাহান পর অবশেষ আইপিএল থেকে এই বছরের জন্য সরে দাঁড়িয়েছে চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা ভিভো। চিনা সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডও। তারপর থেকেই আইপিএলের নতুন টাইটেল স্পনসরের খোঁজ চালাচ্ছে বিসিসিআই। খুব শীঘ্রই সেই নাম ঘোষণা করা হবে বলেও জানানো হয়েছে বিসিসিআইয়ের তরফে। তবে এবার সবাইকে অবাক করে আইপিএলের টাইটেল স্পনসর করার ইচ্ছে প্রকাশ করল বাবা রামদেবের সংস্থা পতঞ্জলি।

আরও পড়ুনঃধোনিতেই আস্থা,আইপিএল জয়ে প্রধান দাবিদার সিএসকে,মত ব্রেট লির

বোর্ড সূত্রে খবর, আইপিএলের টাইটেল স্পনসর হওয়ার জন্য লাইনে রয়েছে একাধিক নামকরা সংস্থা। তাদের মধ্যে রয়েছে রিলায়েন্স জিওর নাম। ঠিক তোমনই স্টার স্পোর্টসও আগ্রহী বলে শোনা যাচ্ছে। এছাড়া অ্যামাজন, টাটা, ড্রিম ইলেভেন, আদানি, বাইজু'স-এর মতো সংস্থাগুলিও লড়াইয়ে নামতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তালিকায় কোকা-কোলাও  রয়েছে। স্পনসরের দৌড়ে রয়েছে আদানি গ্রুপও। এরই ফাঁকে লড়াইয়ে নামল রামদেবের পতঞ্জলি সংস্থা। বাবা রামদেবের সৌজন্যে ইতিমধ্যেই ভারতের বাণিজ্যিকমহলে জাঁকিয়ে বসেছে পতঞ্জলি। এবার আইপিএলকে হাতিয়ার করে সারা বিশ্বের সামনে পরিচিত হতে চাইছে তারা। রামদেবের এই সংস্থার মুখপাত্র এস কে তিজারাওয়ালা এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন,'এ বারের আইপিএলে আমরা টাইটেল স্পনসর হতে চাই। গোটা বিশ্বে পতঞ্জলি ব্র্যান্ডের বাজার তৈরি করাই আমাদের লক্ষ্য।'

আরও পড়ুনঃইস্টবেঙ্গলের আইএস খেলার সম্ভাবনা ৮০ শতাংশ, সমর্থকদের ধৈর্য্য ধরার বার্তা নীতুদার

আরও পড়ুনঃচ্যাম্পিয়ন্স লিগে করোনা ভাইরাসের থাবা, আক্রান্ত অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের দুই সদস্য

আইপিএলের সঙ্গে পতঞ্জলির নাম জড়িয়ে পড়লে সংস্থাটির নামও ছড়িয়ে পড়বে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। সেই কথা মাথায় রেখে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকে প্রস্তাব দেওয়ার কথা চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিজারাওয়ালা। তিনি জানিয়েছেন, তাঁরা বিসিসিআইয়ের সামনে নিজেদের প্রস্তাব পেশ করবেন। এবং অন্যান্য কর্পোরেটের থেকে তা বেশ লোভনীয় হবে। এখন দেখার যে, বাকি কর্পোরেট সংস্থাগুলিকে টেক্কা দিয়ে আইপিএলের আঙিনায় মাথা গলিয়ে দিতে পারে কিনা পতঞ্জলি। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড সূত্রে খবর আগামী সপ্তাহে আইপিএলের টাইটেল স্পনসর নিয়ে বিড হবে। ততক্ষণ জানা যাবে বাবা রামদেবের পতঞ্জলি সকলকে টেক্কা দিতে পারল কিনা।