শশাঙ্ক মনোহর আইসিসির চেয়ারম্যান পদ থেকে সরে যাওয়ার পর থেকেই  শুরু হয়েছিল জল্পনা। কে বসবেন বিশ্ব ক্রিকেটের মসনদে। উঠে আসছিল একাধিক নামও। তাদের মধ্যে রয়েছে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নামও। কিন্তু এবার কে আইসিসির চেয়ারম্যান হবে তা নিয়ে বিবাদ নয়, এবার আইসিসির চেয়ারম্যান নির্বাচনের পদ্ধতি কি হবে তা নিয়ে ঠান্ডা লড়াই শুরু হয়ে গেল চির প্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশ ভারত পাকিস্তানের মধ্যে। কারণ বর্তমানে যা পরস্থিতি তাতে ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে চেয়ারম্যান নির্বাচন করা সম্ভব নয়। নির্বাচন হওয়া অবশ্যম্ভাবী। আর সেই নির্বাচনের পদ্ধতি নিয়েই বিরোধ ভারত-পাকিস্তানে।

আরও পড়ুনঃচ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে এমব্যাপেকে পাওয়ার আশায় পিএসজি

ভারত, অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড চাইছে শুধু সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে নির্বাচন হোক। যেমনটা সব জায়গায় হয়ে আসছে। কিন্তু পাকিস্তানের নেতৃত্বে অন্য দেশগুলি চাইছে নির্বাচন হোক দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে। যাতে ফলাফল পাওয়া অনেক বেশি কঠিন। আইসিসির সদস্য দেশ এবং মনোনীত সদস্য মিলিয়ে মোট ভোট দেওয়ার অধিকার আছে ১৭ জনের।  অর্থাৎ ভারত, ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়া চাইছে এই ১৭ জনের মধ্যে অর্ধেকের বেশি অর্থাৎ ৯ জনের সমর্থন যিনি পাবেন, তাঁকেই পরবর্তী চেয়ারম্যান নির্বাচন করা হোক। অন্যদিকে পাকিস্তান-সহ অন্য দেশগুলি চাইছে মোট দুই-তৃতীয়াংশ অর্থাৎ এই ১৭ জনের মধ্যে ১২ জনের সমর্থন পেলে তবেই আইসিসির চেয়ারম্যান নির্বাচন করা হোক।

আরও পড়ুনঃআইপিএলে সুযোগ না পাওয়ায় আত্মহত্যা মুম্বইয়ের ক্রিকেটারের, ঘর থেকে উদ্ধার ঝুলন্ত দেহ

আরও পড়ুনঃশুরুর আগেই আইপিএলে করোনা ভাইরাসের থাবা, আক্রান্ত রাজস্থান রয়্যালসের ফিল্ডিং কোচ

আপাতত যা পরিস্থিতি আইসিসি আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান করতে পারেনি। আইসিসির চেয়ারম্যান হওয়ার দৌড়ে নাম রয়েছে বিসিসিআইয়ের সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ইসিবির চেয়ারপার্সন কলিন গ্রেভস, এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট ডেভ ক্যামেরুন। যদি ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে নির্বাচন হত তাহলে এতক্ষণে সমস্যা মিটে যেত। কিন্তু তা মানতে নারাজ পাকিস্তান। তারা দুই তৃতীয়াংশের দাবি ধরে রেখেছে। যার ফলে আইসিসির চেয়ারম্যান নির্বাচনের জটিলতা ক্রমশ বাড়ছে। আর বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার নির্বাচনও পরিণত হচ্ছে ভারত-পাকিস্তানের সম্মুখ সমরে।