সচিন তেন্ডুলকর ও সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। শুধু ভারত নয়, বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সফল ওপেনিং জুটি। অনেক ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ তো সরাসরি বলেন, সর্বসাকালেক সেরা ওপেনিং জুটি। দুই কিংবদন্তীর পরিসংখ্যানও তো সেই কথায় বলে। সচিন-সৌরভের ওপেনিং জুটি ভারতের হয়ে ৭৬টি ম্যাচ খেলে তুলেছেন ৮,২২৭ রান। গড় ৪৭.৫৫। যা বিশ্বের অন্য কোনও ওপেনিং জুটির নেই। বর্তমানে লকডাউনের জেরে বন্ধ সমস্ত ধরনের স্পোর্টিং ইভেন্ট। এই সময়ে বিভিন্ন ধরনের পোস্ট করছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা আইসিসি। তেমনই একটি পোস্টে সচিন-সৌরভের ওপেনিং জুটির স্মৃতি উস্কে দিয়ে আইসিসি একটি পোস্ট করে, সেই পোস্টে সচিন-সৌরভ জুটির ছবি, পরিসংখ্যান দিয়ে আইসিসি লেখে, ‘একদিনের ক্রিকেটে সচিন তেন্ডুলকর এবং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। পার্টনারশিপ-১৭৬, রান-৮২২৭, গড়-৪৭.৫৫। একদিনের ক্রিকেটে আর অন্য কোনও জুটি ৬ হাজার রানের গন্ডিও টপকাতে পারেনি।’

 

 

আরও পড়ুনঃসন্দেশ ঝিঙ্গান ও বালা দেবীকে অর্জুন পুরষ্কারের জন্য মনোনীত করল এআইএফএফ

আইসিসির ট্যুইট দেখে হয়তো কিছুটা নস্টালজিক হয়ে পড়েন সচিন তেন্ডুলকর। মনে পড়ে যায় পুরোনো দিনের সব ঐতিহাসিক মুহূর্তগুলি। দেরি না সৌরভের উদ্দ্যেশ্যো মাস্টার ব্লাস্টার লেখেন,'দারুণ স্মৃতি মনে করাল দাদি।' একইসঙ্গে সৌরভের জন্য একটি প্রশ্নও ছুঁড়ে দেন সচিন। লেখেন, ‘তোমার কী মনে হয়, বৃত্তের বাইরে ৪ জন ফিল্ডার এবং দু’টো নতুন বলে খেলা হলে আমরা জুটিতে আরও কত রান যোগ করতে পারতাম।’ লকডাউনের কারণে অন্যান্য ক্রীড়া ব্যক্তিত্বদের মত সোশ্যাল মিডিয়ায় একটু বেশিই সক্রিয় বিসিসিআই  প্রেসিডেন্ট। তাই প্রিয় বন্ধু সচিনের ট্যুঠের জবাব দিতে দেরি করেননি সৈরভ গঙ্গোপাধ্যায়। নিজের চিরাচরিত আগ্রাসী মনোভাবেই সৌরভ পাল্টা সচিনকে লেখেন, ‘আরও ৪ হাজার রান তো বটেই কিংবা তারও বেশি। দু’টো নতুন বল… দুর্দান্ত… মনে হচ্ছে ম্যাচের প্রথম ওভারেই একটা কভার ড্রাইভে বল বাউন্ডারির সীমানা পার করে গেল…বাকি ৫০ ওভারেও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি।’ অর্থাৎ আধুনিক ক্রিকেটের নিয়ম যদি তাঁদের সময় বলবৎ থাকত তবে জুটিতে ১২-১৩ হাজার রান করে থামতেন দু’জনে। এমনটাই জানিয়েছেন মহারাজ।

 

 

আরও পড়ুনঃভারতের মাটিতে আয়োজিত অনুর্ধ্ব ১৭ মহিলা বিশ্বকাপের নয়া সূচি ঘোষণা করল ফিফা

আরও পড়ুনঃমাত্র চার বলেই স্মিথকে আউট করে দিতেন, মন্তব্য শোয়েব আখতারের

আধুনিক ক্রিকেট যেভাবে দিনের পর দিন ব্যাটসম্যানদের খেলায় পরিণত হচ্ছে, তাতে এবিষয়ে কারও সন্দেহ নেই সচিন-সৌরভের মতো অন্যান্য কিংবদন্তীরা যদি এই নিয়মে খেলত, তাহলে আরও অনেক রান করতে পারত। শুধু জুটিই নয়, নিজেদের ব্যক্তিগত রেকর্ড আরও ভাল জায়গায় নিয়ে যে।  যাই হোক আইসিসির এই উদ্যোগ দুই প্রাক্তন ভারতীয় ওপেনারকে যে নিজেদের ক্রিকেট জীবনে দিনগুলি স্মরণ করিয়ে দিয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। একইসঙ্গে সচিন-সৌরভের এই কথোপকথন মনে ধরেছে নেটাগরিকদেরও।