যত দিন যাচ্ছে ক্রিকেটে ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রযুক্তির ব্যবহার। তাদের মধ্যে ডিআরএস অন্যতম। তবে ডিআরএস সিস্টেম নিয়ে বিতর্ক নতুন নয়। বিশেষ করে এলবিডব্লু-এর ক্ষেত্রে ডিআরএস নিলে তা আবার নির্ভর করে 'আম্পায়ার্স কলের' উপর। এই আম্পায়ার্স কল নিয়ে রয়েছে সবথেকে বেশি বিতর্ক। আম্পায়র্স কল হল,এলবিডব্লু-এর ক্ষেত্রে কোনও সিদ্ধান্ত আম্পায়ার নট আউট দেওয়ায় বোলিং টিম ডিআরএস নিল। আর ডিআরএসে আম্পায়েরের সিদ্ধান্ত পাল্টাতে হলে বলে ৫০ শতাংশ উইকেটে হিট করতে হবে। তাহলেই থার্ড আম্পায়ার তা আউট দেবে। কিন্তু ৫০ শতাংশ হিট করল না, সামান্য উইকেটে ছুঁয়ে গেল বল, তাহলে বজায় থাকবে মাঠের আম্পায়ারের নট আউটের সিদ্ধান্ত। আবার মাঠের আম্পায়ার আউট দিলে তা যদি রিভিউ নেয় ব্যাটসম্যান সেক্ষেত্রে উইকেটে সামান্য ছুঁয়ে গেলেও বজায় থাকবে মাঠের আম্পায়েরর সিদ্ধান্ত। এই আম্পায়ার্স কল নিয়ে অন্যান্য অনেকের মতই দ্বিমত রয়েছে মাস্টার ব্লাস্টার সচি তেন্ডুলকরের। ক্যারেবিয়ান কিংবদন্তী ব্রায়ান লারার সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক অ্যাপে কথা বলার সময় সচিন বলেছেন,লেগ বিফোর উইকেটের ক্ষেত্রে ‘আম্পায়ার্স কল’ নিয়মের পরিবর্তন চান তিনি।

আরও পড়ুনঃকোন ফুটবলার জিততে পারে ২০২০ সালের ব্যালন ডি-অর, জেনে নিন সমীকরণ

আরও পড়ুনঃধোনির জন্য সারা রাত মেঝেতে শুয়ে কাটাতে হয়ছিল,জানালেন গৌতম গম্ভীর

লারারা সঙ্গে সেই আলাপচারিতা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন মাস্টার ব্লাস্টার। সেখানে সচিন তেন্ডুলকর বলেছেন,'বলের কত শতাংশ উইকেটে লাগছে, তা বিবেচনার দরকার নেই। ডিআরএস যদি দেখায় যে বল স্টাম্পে লাগছে, তবে তা আউট। মাঠে থাকা আম্পায়ার যাই বলুক না কেন। আইসিসির সঙ্গে ডিআরএস নিয়ে কখনই একমত নই। এলবিডব্লিউয়ের ক্ষেত্রে মাঠে থাকা আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত পাল্টে দিতে বলের ৫০ শতাংশের বেশি স্টাম্পে লাগতে হবে। ব্যাটসম্যান বা বোলার তৃতীয় আম্পায়ারের সাহায্য চায় একমাত্র অন-ফিল্ড সিদ্ধান্তে সন্তুষ্ট না হয়েই। তাই থার্ড আম্পায়ারের কাছে সিদ্ধান্ত যাওয়ার মানে তখন প্রযুক্তিই ঠিক করবে। টেনিসে যেমন হয়, বল হয় ভিতরে পড়েছে, না হয় বাইরে। এর মাঝামাঝি কিছু হয় না।' ভিডিওটি ট্যুইটারে শেয়ার করার সময়ও নিজের বক্তব্যের সপক্ষে যুক্তি দিয়ে সচিন ক্যাপশনে লেখেন,'বলের কত শতাংশ স্টাম্পে লাগত তা বিবেচনা করা ঠিক হবে না। ডিআরএস যদি দেখায় যে বল স্টাম্পে লাগত, তবে আউট দেওয়া উচিত। অনফিল্ড আম্পায়ার যাই মনে করুন না কেন। ক্রিকেটে প্রযুক্তি ব্যবহারের সেটাই তো উদ্দেশ্য। আমরা জানি প্রযুক্তি ১০০ শতাংশ ঠিক নয়। কিন্তু মানুযও তো ১০০ শতাংশ নির্ভুল নয়।' এবার দেখার বিষয় কিংবদন্তী সচিন তেন্ডুলকরের আম্পায়ার্স কল নিয়ে আপত্তির বিষয়টি কতটা গুরত্ব দিয়ে বিচার করেন আইসিসির কর্তারা।

 

 

আরও পড়ুনঃবরফের কেক কেটে জন্মদিন পালন জওয়ানদের,সেওয়াগের শেয়ার করা ভিডিও দেখলে চোখের কোণ ভিজবে আপনারও