বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছিল টিম ইন্ডিরা। ইংল্যান্ড থেকে দল দেশে ফেরেনি, ক্যারেবিয়ান সফরে চলে যান কোহলিরা। সেখানে গিয়েও দাপটের সঙ্গেই সফর শেষ করে ভারত। প্রথমে টি২০ তারপর একদিনের ম্যাচ এবং সবার শেষে টেস্ট সিরিজ। একশো শতাংশ সাফল্য নিয়েই দেশে ফেরেন রোহিতরা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে একটি ম্যাচ খেলেছেন বিরাটরা। দাপটের সঙ্গেই সেই ম্যাচেও জিতেছে দল। রবিবার টি২০ সিরিজের শেষ ম্যাচ। কিন্তু কোথাও যেন এখন থেকেই টেস্ট সিরিজের আবহ ঢুকে পরেছে। 

আরও পড়ুন - টি২০ বিশ্বকাপের আগে তরুণদের ধারাবাহিক ভাবে দলে দেখতে চান ধাওয়ান

তবে টেস্টের মঞ্চে পা রাখার আগে টিম ইন্ডিয়ার একটাই লক্ষ্য, হারের মুখ যেন দেখতে না হয়। বিশ্বকাপের পর থেকে দল সব ধরনের ক্রিকেটে যে ধারাবাহিতকা দেখিয়েছে সেটা ধরে রেখেই প্রোটিয়াসদের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে নামতে মরিয়া বিরাটের দল। উইনিং কম্বিনেশন ভাঙার সম্ভাবনা খুব একটা নেই। আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে চলা টি২০ বিশ্বকাপকে ফোকাস করছে টিম ইন্ডিয়া। মোহালিতে ওয়াশিংটন সুন্দর, দীপক চাহাররা যা পারফর্ম করেছেন তাতে এখনই তাদের সরিয়ে অন্যদের সুযোগ দেওয়ার পক্ষপাতি নয় টিম ম্যানেজমেন্ট। বেঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম অধিনায়ক বিরাটের কাছে ঘরের মাঠের মতই। আইপিএলে অধিনায়ক হিসেবে খুব একটা সফল হতে পারেননি বিরাট, কিন্তু ব্যাটসম্যান বিরাটের অসামান্য ঝলক দেখেছে বেঙ্গালুরুর মাঠ। মোহালিতে বিরাট বিক্রমে জয় পেয়েছে ভারত। সেই ফর্মই এবার চিন্নাস্বামীতে ধরে রাখতে চাইবেন বিরাট। 

আরও পড়ুন - ভারত পৌছাতে নাজেহাল অবস্থা ফাফ ডুল্পেসির, ক্ষোভ উগরে দিলেন টুইটে

অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকাও মরিয়া সিরিজে সমতা ফিরিয়ে আনতে। কিন্তু কাজটা তাদের কাছে খুব একটা সহজ হবে না। ভারতীয় দলে নিয়ে প্রশ্ন একটা জায়গাতেই। সেটা ঋষভ পন্থ। মোহালিতে আবার ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। তাই ক্রিকেট মহল মনে করছে বেঙ্গালুরুতেই আপাতত শেষ সুযোগটা পেতে চলেছেন পন্থ। সেটা তিনি কাজে লাগাতে না পারলে দলে জায়গা ধরে রাখাটা কঠিন হয়ে পরতে পারে দিল্লির তরুণ উইকেট কিপারের কাছে। 

আরও পড়ুন - দ্রাবিড়ের হাত বদল, অপেশাদার আইসিসির ওপর ক্ষুব্ধ ক্রিকেট মহল