করোনা ভাইরাসের থাবা ক্রমশ গ্রাস করছে গোটা পৃথিবীকে। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এখনও পর্যন্ত এই মারণ ভাইরাস বিশ্বজুড়ে প্রাণ কেড়েছে ৬ হাজারের বেশি মানুষের। মৃতের সংখ্যা সব থেকে বেশি চিন ও ইতালিতে। করোনার কোপে চিনে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তিন হাজারের বেশি মানুষের। ইতাালিতে মৃতের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। ভারতেও আক্রান্তের সংখ্যা ১১০-এর বেশি।  ক্রীড়া বিশ্বও আতঙ্কের সঞ্চার করেছে করোনা ভাইরাস। আক্রান্ত হয়েছেন বেশ কয়েক জন ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব। করোনা ভাইরাসের জেরে ইউরোপের একাধিক দেশের হাইপ্রোফাইল ফুটবল টুর্নামেন্ট থেকে শুরু করে আজলান শাহ হকি, শুটিং বিশ্বকাপের মতো ইভেন্ট বাতিল করে দিতে হয়েছে। গোটা বিশ্বের পরিস্থিতি দেখে টোকিও অলিম্পিক বাতিল করার দাবি ক্রমশ জোরদার হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে অলিম্পিকের ভবিষ্যত নিয়ে মঙ্গলবার বৈঠকেও বসতে চলেছে আইওসি।

আরও পড়ুনঃ করোনা নিয়ে ভিডিও বার্তা রোহিতের, সকলকে সচেতন ও সুস্থ থাকার পরামর্শ

আরও পড়ুনঃবাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত ৮, সোশাল সাইটে সচেতনতা বার্তা সাকিব আল হাসানের

টোকিও অলিম্পিকের প্রস্তুতি ছিল তুঙ্গে। কিন্তু বাধ সাধে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক। কারণ জাপানেও থাবা ক্রমশ  চওড়া করছে করোনা। আক্রান্ত কয়েক হাজাার মানুষ।  মৃত্যুও হয়েছে বেশ কয়েক জনের।  এই আতঙ্কের পরিস্থিতিতে জাপানের সাধারণ বাসিন্দারা দাবি তুলছেন অলিম্পিক বাতিল করার। কারণ অলিম্পিক হলে লক্ষাধিক মানুষের সমাগম হবে জাপানে। বিভিন্ন দেশের মানুষ একত্রিত হবেন। ফলে সেখান থেকে করোনা ভাইরাসের সমক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার একটা আশঙ্কা একটা থেকেই যাচ্ছে। প্রশাসনের পক্ষে এত মানুষের দিকে নজরদারি রাখা সম্ভব নয়। টোকিওর এক ব্যবসায়ী এ প্রসঙ্গে বলছিলেন, মানুষের জীবন সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আয়োজকদের সেটা ভাবা উচিৎ।

আরও পড়ুনঃ১৬ মার্চ মানেই সচিনের ১০০ তম শতরানের দিন, দেখে নিন মাস্টারব্লাস্টারের কিছু চিরস্মরণীয় মুহূর্ত

অপরদিকে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং অলিম্পিকের আয়োজকরা বলছেন, নির্ধারিত সূচি মেনেই অলিম্পিক শুরুর যাবতীয় প্রস্তুতি চলছে। টোকিও অলিম্পিকের উপর এর কোনও প্রভাব পড়বে না। জাপানবাসীর দাবি ও বর্তমান পরিস্থিতি বিচার করে কার্যত একপ্রকার বাধ্য হয়েই অলিম্পিকের ভবিষ্যৎ নিয়ে মঙ্গলবার জরুরি বৈঠকে বসছে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি। সব আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সংস্থার আধিকারিকরা তাতে অংশ নেবেন। সেখানেই ঠিক হবে অলিম্পিকের ভবিষ্যৎ। বৈঠক থেকে কী সমাধান সূত্র বেরিয়ে আসে এখন সেদিকেই নজর গোটা বিশ্বের।