করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে নির্ধারিত সময়ে শুরু হয়নি আইপিএল এবং অদূর ভবিষ্যতে শুরু হওয়ার কোনরকম সম্ভাবনাও দেখা যাচ্ছে না। এই ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে এর মধ্যেই বিসিসিআইয়ের ৪০০০ কোটি টাকা ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ক্রিকেট ভক্তরা এই পয়সা-সমৃদ্ধ লিগের একটি বড় অংশ। আইপিএল কে ঘিরে তারাও আশা আকাঙ্ক্ষার দোলাচলে ভাসছেন আপাতত। স্পষ্ট করে আইপিএলের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে এই মুহুর্তে কোনও ধারণাই করা যাচ্ছে না। 

আরও পড়ুনঃকরোনা আতঙ্ককে তুড়ি মেরে উড়িয়ে আজ শুরু বুন্দেশলিগা, পড়ুন ৬ ম্যাচের প্রিভিউ

প্রথমে আইপিএল এর সম্পর্কে ভাবতে গেলে ভাবা হত যে এর চেয়ে বড় কিছুই নেই। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে আইপিএলের চেয়েও ক্রীড়া ভক্তদের সুরক্ষা কে সবচেয়ে বড় করে দেখা হচ্ছে। কারণ ভক্তরা না থাকলে খেলার মাঠের আনন্দই অর্ধেক হয়ে যায়। আইপিএলে মায়াময় পরিবেশ ভক্তদের বাদ দিয়ে অসম্পূর্ণ। এই কথাটি খুব ভালো করেই বোঝেন কেকেআর সিইও ভেঙ্কি মাইসোর। তিনি নিজে ঝানু ব্যবসায়ী মানুষ। আইপিএল শুরু হলেও হয়তো এই বছর দর্শকবিহীন ভাবেই অনুষ্ঠিত হবে আইপিএল। এই জটিলতার সমাধানের অভিনব প্রস্তাব দিয়েছেন মাইসোর। 

আরও পড়ুনঃআন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আগে ফেরানো উচিত ঘরোয়া ক্রিকেট, মত শাস্ত্রীর

আরও পড়ুনঃরাজীব খেলরত্নের জন্য শুটার অঞ্জুম মুদগিলের নাম প্রস্তাব এনআরএআইয়ের

তার এই প্রস্তাব বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে একটি বড় ভূমিকা নেবে প্রযুক্তি। তার মতে স্টেডিয়ামে এলইডি দেওয়ালের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। সেই স্ক্রিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় খেলা দেখতে থাকা ভক্তদের দেখিয়ে কৃত্রিম ভাবে ভরা গ্যালারির পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারে। তিনি আমেরিকান ফুটবলের উদাহরণ তুলে এনে গ্যালারিতে মাইক্রোফোনের সাহায্যে ভক্তদের উল্লাসের আওয়াজ শুনিয়ে কৃত্রিম ভাবে ভরা গ্যালারির পরিবেশ তৈরির পরামর্শ দিয়েছেন। এখন দেখার এই বছর আইপিএল আদেও অনুষ্ঠিত হতে পারে কিনা এবং হলেও এই ব্যবস্থা গুলি করা সম্ভব হয় কিনা।