প্রয়াত প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির খুব কাছের মানুষ ছিলেন তিনি। অরুণের হাত ধরেই ক্রিকেট প্রশাসনে এসেছিলেন ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের অন্যতম পরিচিত মুখ রজত শর্মা। প্রায় ২০ মাস আগে অরুণ জেটলির সমর্থনেই দিল্লি ডিস্ট্রেকিট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিপ পদে বসেছিলেন তিনি। কিন্তু ২০ মাসেই রজত শর্মা বুঝে গেলেন দিল্লি ক্রিকেটের সব থেকে বড় পদটায় বসা একেবারেই সহজ কাজ নয়। তাই মোহভঙ্গ। শনিবার সকালে ডিডিসিএ সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দিলেন রতজ শর্মা। 

 


আরও পড়ুন - শেষ হল আইপিএল- এর দলবদল, এরপর ডিসেম্বরে আসছে 'নিলাম কলকাতা'

সভাপতি পদে ইস্তফা দিয়ে নিজের বিবৃতিতে রজত জানিয়েছেন, দিল্লিতে কাজ করটা সহজ কাজ নয়।  প্রতিটা দিন এমন কিছুর সামনে পরতে হবে যেটা ক্রিকেটর উন্নতির জন্য কাচে আসবে না। প্রতি দিন তৈরি করা হবে চাপ। ক্রিকেট ছাড়াও আর বাকি সব বিষয়ে এখানে সব থেকে বেশি সময় দেওয়া হয়। নিজের কার্যকালে তিনি ক্রিকেটর জন্য সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আর সেটা সম্ভব নয়। তাই নিজের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এমনটাই জানিয়েছেন রজত শর্মা। 

আরও পড়ুন - তিন দিনেই যবনিকা পড়তে চলেছে প্রথম টেস্টের, আবার ধরাশায়ী বাংলাদেশ ব্যাটিং

অরুণ জেটলির সমর্থন নিয়ে রজত শর্মা ডিডিসিএর সভাপতি পদে বসলেও তাঁকে সেই পদে দেখতে চাননি। দিল্লি ক্রিকেটের অনেক কর্তাই। কিন্তু অরুণ জেটলি যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন কেউ কোনও কথা বলতে পারেননি। কিন্তু প্রাক্তন অর্থ মন্ত্রীর মৃত্যুর পর থেকেই রজতের ওপর চাপ ক্রমশ বাড়তে শুরু করে। ডিডিসিয়ের সচিব বিনোদ তিহারার সঙ্গে বিবাদ চরমে ওঠে। এই পরিস্থিতিতে রজত তেমন ভাবে কাউকেই পাশে পাননি। তাই দিল্লি জেলা ক্রিকেট সংস্থার সভাপতিপর পদ থেকে ইস্তফা দিলেন তিনি। এমনই মনে করছে ক্রিকেট মহল। 

আরও পড়ুন - দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ হতেই শুরু গোলাপী বলে অনুশীলন, ব্যাট হাতে নামলেন ধোনিও