রোহিতের ব্যাটে যেন ফিরে এলে নজফগড়ের নবাব। টেস্টে ওপেনার হিসেবে রোহিত শর্মা প্রথম ম্যাচে নামার আগে ভারতীয় দলের অধিনায়কের মুখে উঠে এসেছিল আরও একটা নাম। বীরেন্দ্র শেহওয়াগ। গোটা দেশও যেন রোহিতের মধ্যে এই যুগের শেহওয়াগকে খুঁজে পেতে চাইছিল। আর রোহিতও দেশের জনতার সেই প্রত্যাশার মান রাখলেন। টেস্ট ওপেনার হিসেবে প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেই হাঁকালেন দাপুটে সেঞ্চুরি। 

আরও পড়ুন - বয়েস ভাঁড়ানো রুখতে এবার হেল্প লাইন নাম্বার চালু করল ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড

 

বিশাখাপত্তনমের মাঠে রোহিত ও ময়ঙ্ক যখন মাঠে নেমেছিলেন তখন সবার ফোকাস ছিল টিম ইন্ডিয়ার সীমিত ওভারের সহ অধিনায়করে দিকেই। তিনি নতুন করে তো মাঠে নামছেন না। শুধু ভূমিকাটা বদলে গেছে। ঠিক যেভাবে একদিনেক ক্রিকেটে ২০১৩ সালে বদলে গিয়েছিল। ধোনি মিডিল অর্ডার থেকে রোহিতকে তুলে এনেছিলেন ওপেনার হিসেবে। এবার টেস্ট সেটাই করলেন কোহলি। মিডিল অর্ডারে রোহিতের জায়গা হচ্ছে না। অথচ একদিনেক ক্রিকেট ভআরতীয় দলের সেরা ব্যাটসম্যান বাইরে বসে থাকবেন সেটাই বা কি করে হয়। রাস্তাটা দেখিয়েছিলেন প্রক্তন অধিনায়ক সৌরভ।  ক্রিকেটিয় পরিকল্পনায় এখনও যে দাদার মাথা কতটা সচল সেটা বোঝা গেল, যখন শতরান করে ব্যাট তুললেন ওপেনার রোহিত। 

আরও পড়ুন - মহাত্মা গান্ধীর ফুটবল প্রেম , দক্ষিণ আফ্রিকার অজান কথা

সেঞ্চুরি করার পরও থামেনি তাঁর আক্রমনাত্ম ব্যাটিং। সঙ্গি ময়ঙ্ক আগরওয়ালকে সঙ্গে নিয়ে ভারতীয় দলকে ২০০ রানের গন্ডি পার করিয়ে দিলেন রোহিত। স্পিনারকে স্টেপ আউট করে ছয় মারা হোক বা পেসারদের কাট। রোহিতের মধ্যে যেন বর্তমান টেস্ট ক্রিকেটের শেহওয়াগকে খুঁজে পেল ভারতীয় ক্রিকেট। 

আরও পড়ুন - মিডল অর্ডার থেকে ওপেনারের ভূমিকায় সেরা পাঁচ সফল ব্যাটসম্যান