বর্তমান ক্রিকেটে ৪০ থেকে ৫০ বলে সেঞ্চুরি প্রায়শই অনেক ব্যাটসম্যান করেন। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের যুগে এখনও আর তা দর্শককে ততটা অবাক করে না। মনোরঞ্জন অবশ্যই করে। কিন্ত ১৯৯৬ সারে একদিনের ক্রিকেট ৩৭ বলে সেঞ্চুরি করা কল্পনাতীত ছিল সকলের কাছে। আর সেই কাজটিই সেই সময় করে দেখিয়েছিলেন পাকিস্তানের হয়ে সবে দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচ খেলা ক্রিকেটার তরুণ শাহিদ আফ্রিদি। সেই ম্যাচে শ্রীলঙ্কান বোলারদের কার্যত রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছিলেন বুমবুম। ১১টা ৬ ও ৬টা ৪-এর সৌজন্যে ১০২ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেছিলেন আফ্রিদি।

আরও পড়ুনঃ'বুকের মাঝে থাকবে ইডেন ও কলকাতার ভালবাসা', মরুদেশে পারি দেওয়ার আগে বার্তা কেকেআরের

পাক তারকার ওই ইনিংসের পর অনেকেই তার ব্যাট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন যে, কী ব্য়াট নিয়ে সেদিন মাঠে নেমেছিলেন আফ্রিদি। এতবছর পর সেই রহস্যের খোলাসা করলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্লেয়ার ও আফ্রিদির সতীর্থ আজহার মাহমুদ। তিনি জানান, ওই ব্যাটটি অন্য কারও নয়, ছিল মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকরের। ব্যাটটি ওয়াকার ইউনিসকে উপহার দিয়েছিলেন সচিন। সেই ব্যাট নিয়েই ১৯৯৬ সালে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে খেলতে নেমে ঝড় তুলেছিলেন ‍‘বুম বুম আফ্রিদি’। শুধু পাকিস্তান বা শ্রীলঙ্কা দল নয়, ৩৭ বলে সেঞ্চুরি করে গোটা ক্রিকেট বিশ্বে সেদিন চমকে দিয়েছিলেন শাহিদ ঈফ্রিদি।

সচিনকে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলে ফেরাতে চান রোহিত, একসঙ্গে ওপেনের ইচ্ছে প্রকাশ মাস্টার ব্লাস্টারের

আরও পড়ুনঃশক্তি তো সকলের জানা, এবার জেনে নিন আইপিএলের দলগুলির দুর্বলতা

আজহার মাহমুদ জানিয়েছেন,'১৯৯৬ সালে সহারা কাপের পরেই আমার সঙ্গে পাক দলে অভিষেক ঘটে আফ্রিদির। মুস্তাক আহমেদ আহত হওয়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে উড়ে এসে দলের সঙ্গে যোগ দেয় ও। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দ্রুত রান তোলার জন্য আফ্রিদিকেই তিন নম্বরে পাঠানো হয়েছিল। ওয়াকার ইউনিস একটা ব্যাট পেয়েছিল সচিনের কাছ থেকে। সেই ব্যাটটা নিয়েই আফ্রিদি সে দিন খেলতে নেমে ওই সেঞ্চুরিটা করে। তার পর থেকেই ও ব্যাটসম্যান হয়ে যায়। তার আগে ওর পরিচয় ছিল, একজন বোলার যে জোরে ব্যাট চালিয়ে চার-ছক্কাও মারতে পারে। কিন্তু ওই ইনিংসের পরে আফ্রিদি ব্যাটসম্যান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।' আফ্রিদির দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড অক্ষত ছিল ১৮ বছর। তার পর ৩৬ বলে সেঞ্চুরি করে  সেই রেকর্ড ভাঙেন নিউজ়িল্যান্ডের অলরাউন্ডার কোরি অ্যান্ডারসন। যদিও সেই রেকর্ডও ভেঙে বর্তমানে ৩১ বলে সেঞ্চুরি করে দ্রুততম সেঞ্চুরির মালিক এবি ডিভিলিয়ার্স।