ফের ক্রিকেটে ফেরার প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছেন শ্রীসন্থ। শুধু ফেরাই নয়, পের বিশ্বকাপ খেলারও স্বপ্ন দেখছেন এই ভারতীয় পেস বোলার। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে শেষ হচ্ছে শ্রীসন্থের ৭ বছরের নির্বাসনের মেয়াদ। তারপর রঞ্জি ট্রফিতে ফেরার কথা বলেছেন শ্রীসন্থ। কেরলের কোচও বলেছেন শ্রীসন্থের ফর্ম ও ফিটনেস ঠিক থাকলে তাকে দলে নেওয়া হতে পারে। সেখান থেকেই আরও বেশি অনুপ্রেরণা পেয়েছেন কেরল এক্সপ্রেস। সেখান থেকেই বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন দেখছেন শ্রীসন্থ।

আরও পড়ুনঃক্রিকেটে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের আঁতুরঘর হয়ে উঠছে ভারত,দাবি আইসিসির

ক্রিকেটে ফেরার প্রসঙ্গে শ্রীসন্থ জানিয়েছেন,'এখনও বিশ্বাস করি যে ২০২৩ সালের বিশ্বকাপ খেলার ক্ষমতা রয়েছে। এটা আমার দৃঢ় বিশ্বাস। নিজের লক্ষ্য নিয়ে আমি কখনই বাস্তববাদী নই। কিন্তু অধিকাংশ অ্যাথলিট এমনই। যদি আমাদের এমন অসম্ভব কোনও লক্ষ্য না থাকে, তবে আমরা সাধারণে পরিণত হব।'এছাড়াও শ্রীসন্থ জানিয়েছেন,হতাশা কাটিয়ে উঠতে প্রচুর পরিশ্রম করেছি। এমনকি মিক্সড মার্শাল আর্টস পর্যন্ত করেছি। নিজের রাগ-হতাশা কোথাও বের করতে হত আমাকে। আমি কাউকে মারিনি, তবে তার কাছাকাছি কাজই করেছি। পাঞ্চিং ব্যাগ বা মাদুরে হিট করেছি। ফিটনেস ট্রেনিং করেছি। বোলিংয়েও ছন্দে ফিরছি।' ২০২৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপকেই যে পাখির চোখ করে এগোচ্ছেন শ্রীসন্থ তাও পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন কের এক্সপ্রেস।

আরও পড়ুনঃনেতা সৌরভের মধ্যে ক্লাইভ লয়েডকে দেখতে পেতেন শ্রীকান্ত

আরও পড়ুনঃচিনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন হরভজন,নিলেন চিনা পণ্যের বিজ্ঞাপন না করার সিদ্ধান্ত

২০১৩ সালে আইপিএল স্পট ফিক্সিং কাণ্ডে নাম জড়িয়ে যায় ২০১১ সালের বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় পেসার এস শ্রীসন্থের। এরপরেই গ্রেফতার হওয়া শ্রীসন্থকে আজীবন নির্বাসনে পাঠায় বিসিসিআই। ২০১৫ সালে স্পট ফিক্সিং মামলা থেকে মুক্তি মিললেও বিসিসিআই নিষেধাজ্ঞা জারি রাখে। বোর্ডের এই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে ২০১৮ সালে কেরল হাইকোর্টে মামলা করেন শ্রীসন্থ। সেখানে আদাতলতের নির্দেশে শ্রীসন্থের নির্বাসনের মেদায় কমিয়ে সাত বছর করে দেয় বিসিসিআই। চলতি বছরেই সেপ্টেম্বরে শ্রীসন্থের নির্বাসনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। জীবনের এই দিনগুলিকে পিছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যেতে চাইছেন শ্রীসন্থ।