আগামী ৮ জুলাই থেকে ইংল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট সিরিজের মধ্য দিয়ে লকডাউন পরবর্তী সময়ে ফিরতে চলেছে ক্রিকেট। স্বাস্থ্যবিধি মেনে হবে খেলা।  কিন্তু বিশ্ব ক্রিকেটে এখনও কমেনি করোনা ভাইরাসের থাবা। তাই অন্য কোনও আন্তর্জাতিক সিরিজ শুরুর করার ঝুঁকি নিতে চাইছে সংশ্লিষ্ট ক্রিকেট বোর্ডগুলি। এবার করোনা ভাইরাসের কারণে স্থগিত হয়ে গেল বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ডের টেস্ট সিরিজ। আগামী অগাস্ট-সেপ্টম্বরে বাংলাদেশের মাটিতে আয়োজিত হওয়ার কথা ছিল এঅ সিরিজের। কিন্তু বর্তমানে বাংলাদশের করোনা পরিস্থিতির কথা ভেবে সিরিজ স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুই বোর্ড।

আরও পড়ুনঃপাকিস্তানে ক্রিকেট দলে করোনার থাবা,আক্রান্ত তিন ক্রিকেটার

আরও পড়ুনঃদক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটে করোনার থাবা,আক্রান্ত একসঙ্গে ৭ জন

ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্দরেও থাবা বসিয়েছে করোনা ভাইরাস। আক্রান্ত হয়েছেন প্রাক্তন অধিনায়ক মাশরফি মোর্তাজা, স্পিনার নাজমুল ইসলাম ও তার পরিবার, বর্তমানে বাংলাদেশের একদিনের দলের অধিনায়ক তামিমি ইকবালের পরিবারের ৪ সদস্যও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। এছাড়াও দেশ জুড়ে প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এই পরিস্থিতে সিরিজ করা থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডই। আগামী দিনেকব কবে,কীভাবে এই সিরিজের আয়োজন করা যায় তার জন্য চিন্তা-ভাবনা চালাচ্ছে দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডের আধিকারিকরা।

আরও পড়ুনঃপেশাদার রেসলিংকে বিদায় জানানোর সিদ্ধান্ত নিলেন দ্য আন্ডারটেকার

সিরিজ স্থগিত রাখার সিদ্ধান্তের পাশাপাশি এই পরিস্থিতিতে জাননো বিসিবির তরফ থেকে জানানো হয়েছে,বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে একটি সম্পূর্ণ টেস্ট সিরিজের আয়োজন করা সত্যিই চ্যালেঞ্জের। যাত একটা বিপদের আশঙ্কা থেকেই থেকেই যাচ্ছে। এছাড়াও প্লেয়ার স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা নিয়ে আমরা বর্তমানে কোনওরকম ঝুঁকি নিতে চাই না। একই যুক্তি প্রযোজ্য কোচ, সাপোর্টিং ও অন্যান্যদের জন্য। এই পরিস্থিতিতে আগামী কবে এই সিরিজের আয়োজন করা সম্ভব হয়. সেদিকেই নজর বিসিবি কর্তাদের।